শিলিগুড়ি, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ লোকসভা ভোটের মুখে রেলকে হাতিয়ার করেছে কেন্দ্রের শাসকদল। রেলের উন্নয়ন দিয়ে সাধারণ মানুষের মন জয়ের চেষ্টাও শুরু হয়েছে। ওই লক্ষ্যেই বৃহস্পতিবার নতুন সাজে সজ্জিত শিলিগুড়ি জংশন এবং টাউন স্টেশনের একগুচ্ছ প্রকল্পের উদ্বোধন করা হচ্ছে। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রকল্পগুলির উদ্বোধনের পাশাপাশি কয়েকটি প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন দার্জিলিংয়ের সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হচ্ছে শিলিগুড়ির জনপ্রতিনিধিদের। কাটিহারের ডিভিশনাল ম্যানেজার চন্দ্রপ্রকাশ গুপ্তার বক্তব্য,‘পর্যটনের জন্য স্টেশনগুলিকে নতুনভাবে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে। গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে যাত্রীসুবিধাকেও।’

নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের ওপর চাপ কমাতে শিলিগুড়ি জংশন থেকে দার্জিলিং মেল সহ দূরপাল্লার একাধিক ট্রেন চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের। এই লক্ষ্যে স্টেশনটিতে নতুন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করাও হয়েছে। স্টেশনের সামনে টয়ট্রেনের স্টিম ইঞ্জিন রেখে নতুন বাগান তৈরি করা হয়েছে। এমনই একগুচ্ছ প্রকল্পের উদ্বোধন হচ্ছে বৃহস্পতিবার। শিলিগুড়ি জংশনের সঙ্গে শিলিগুড়ি টাউন স্টেশনেরও নতুন প্ল্যাটফর্মের উদ্বোধন হবে ওই দিন। সাধারণের চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে টাউন স্টেশনের ফুট ওভারব্রিজটি। এই ব্রিজটি চালুর পর অনুমোদনহীন বাগরাকোটের লেভেল ক্রসিং পুরোপুরিভাবে বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে এক রেলকর্তা জানান। তাঁর বক্তব্য, ‘স্টেশনের দুই পাশের মানুষের চলাচলের জন্যই ফুট ওভারব্রিজটি তৈরি করা হয়েছে। ফলে বাগরাকোটের লেভেল ক্রসিং থাকার অর্থই দুর্ঘটনাকে ডেকে আনা।’ এদিকে, শিলিগুড়ি জংশনের অনুষ্ঠান মঞ্চ থেকে বৃহস্পতিবার দার্জিলিংয়ের সাংসদ উদ্বোধন করবেন বাগডোগরা এবং নকশালবাড়ি স্টেশনের নতুন প্ল্যাটফর্মের। জানা গিয়েছে, প্রকল্পগুলির উদ্বোধনের পরই শিলিগুড়ি টাউন স্টেশন এবং জংশন এলাকায় জবরদখল ওঠাতে উচ্ছেদে নামবে রেল। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনকে ইতিমধ্যে চিঠিও পাঠানো হয়েছে রেলের তরফে। যা জানতে পেরে আন্দোলনে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন সংগঠন। দীর্ঘ বছর ধরে রেলের অব্যবহৃত জমিতে ব্যবসা করা সাধারণ মানুষ কোথায় যাবেন, প্রশ্ন তুলেছে বৃহত্তর শিলিগুড়ি খুচরা ব্যবসায়ী সমিতি। উচ্ছেদের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগঠিত করতে বুধবার বৈঠকেও বসছে ব্যবসায়ীদের এই সংগঠনটি।