রাজ্যের এই জেলায় স্বাধীনতা দিবস পালিত হল আজ

231

বালুরঘাট: ১৮ অগাস্ট স্বাধীনতা দিবস পালিত হয় বালুরঘাটে। বুধবার বিজেপির দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা কমিটির তরফে বালুরঘাট হাইস্কুল মাঠে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। এদিন বিভিন্ন এলাকায় অনুষ্ঠিত হবে নানা অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা।

১৯৪২ সালে ভারত ছাড়ো আন্দোলনে অন্যতম ভূমিকা নিয়েছিল বালুরঘাট। ইংরেজদের নাকের ডগা থেকে ছিনিয়ে নিয়ে তিনদিন বালুরঘাটকে স্বাধীন করে রেখেছিলেন সশস্ত্র বিপ্লবীরা। তবে তিনদিন পর থেকে ইংরেজরা বদলা হিসেবে বিপ্লবীদের ওপর চরম অত্যাচার শুরু করে। বহু বিপ্লবী সেইসময় কারাবন্দি যেমন হয়েছেন, তেমনি অনেকে আত্মগোপন করেছিলেন।

- Advertisement -

১৯৪৭ সালের ১৫ই অগাস্ট বালুরঘাটবাসীর কাছে আনন্দের ছিল না। কারণ সিরিল রাডক্লিফের সীমানা বন্টনের সুপারিশে বালুরঘাট, মালদা, রায়গঞ্জের মতো শহরগুলিকে পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। এই এলাকাগুলি নোশনাল এরিয়া অর্থাৎ ধারণাগত এলাকা বলে চিহ্নিত করা হয়েছিল। তাই সেইসময় গোটা দেশে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হলেও বালুরঘাটে উঠেছিল পাকিস্তানের পতাকা। এই পতাকা উত্তোলন করেছিলেন বালুরঘাটের তৎকালীন মহকুমা শাসক পানাউল্লাহ। ১৪ অগাস্ট পাকিস্তান স্বাধীন হওয়ার দিনই বালুরঘাট ও সংলগ্ন এলাকাগুলির দখল নিয়েছিলেন পাক সেনারা।

পাকিস্তানের পতাকার আওতায় থাকতে রাজি ছিলেন না সেখানকার স্বাধীনতা সংগ্রামীরা। নানা যুক্তি-তর্ক পেশ করা হয়েছিল। এলাকার ভৌগোলিক চিত্র, জনসংখ্যার তথ্য সহ নানা অকাট্য যুক্তি পেশ করে শেষ পর্যন্ত মানতে বাধ্য করা হয় যে বালুরঘাটকে ভারতের মধ্যেই রাখতে হবে। অবশেষে ১৯৪৭ সালের ১৭ অগাস্ট বিকেলে পাক সেনারা বালুরঘাট ছেড়ে চলে যান। ১৮ অগাস্ট বালুরঘাটবাসী স্বাধীনতা দিবস পালন করেন। সেদিন ছিল তাঁদের কাছে মুক্তির দিন। ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় থেকে আত্মগোপন করে থাকা বিপ্লবীরা দীর্ঘ পাঁচ বছর পরে ১৮ অগাস্ট আত্মপ্রকাশ করেন। বিপ্লবী সরোজরঞ্জন চট্টোপাধ্যায় সহ আরও অনেকে সেখানে উপস্থিত হয়ে ভারতের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। এরপর বালুরঘাটে একটি পরিক্রমাও করা হয়েছিল।