বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে হাইপারসনিক টেকনোলজির পরীক্ষায় সফল ভারত  

892

উত্তরবঙ্গ সংবাদ ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের হাইপারসনিক টেকনোলজি ডেমনস্ট্রেটর ভেহিকেলের (HSTDV) পরীক্ষা সফল হল। চতুর্থ দেশ হিসেবে এই প্রযুক্তির পরীক্ষায় সফল হয়েছে ভারত। এর আগে আমেরিকা, রাশিয়া, চিন HSTDV-এর পরীক্ষায় সফল হয়েছিল। সোমবার সকাল ১১টা ৩ মিনিট নাগাদ ওডিশার বালাসোরের এপিজে আব্দুল কালাম টেস্টিং রেঞ্জে (হুইলার আইল্যান্ড) হাইপারসনিক টেকনোলজি ডেমনস্ট্রেটর ভেহিকেলের (HSTDV) পরীক্ষা হয়েছে। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে এটা তৈরি করেছে ডিফেন্স রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (DRDO)।

- Advertisement -

এই প্রযুক্তি দিয়ে শব্দের চেয়ে ৬ গুন বেশি দ্রুতগামী মিসাইল তৈরি করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছে ডিআরডিও। মনে করা হচ্ছে, এই পরীক্ষার অর্থ, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ডিআরডিও স্ক্র্যামজেট ইঞ্জিনের মাধ্যমে হাইপারসনিক মিসাইল তৈরি করতে পারবে। প্রতি সেকেন্ডে যার গতি হবে দুই কিলোমিটারেরও বেশি। এদিনের পরীক্ষায় নেতৃত্ব দেন ডিআরডিও চিফ সথীশ রেড্ডি ও তাঁর হাইপারসনিক মিসাইল টিমের সদস্যরা।সোমবার ১১টা ৩ মিনিট নাগাদ পরীক্ষার প্রথম ধাপে অগ্নি মিসাইল বুস্টার হাইপারসনিক ভেহিকেলকে ৩০ কিলোমিটার উঁচুতে নিয়ে যায়। পরে তা আলাদা হয়ে যায়।

সফল পরীক্ষার পরপরই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং ডিআরডিওকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে স্ক্র্যামজেট ইঞ্জিন তৈরির জন্য তিনি ডিআরডিও-র প্রশংসা করেছেন। তাঁর মতে, এটি ল্যান্ডমার্ক অ্যাচিভমেন্ট। এরফলে আত্মনির্ভরতার দিকে ভারত আরও এককদম এগিয়ে গেল। রাজনাথ সিং টুইটে বলেছেন, ‘সোমবার হাইপারসনিক টেকনোলজি ডেমনস্ট্রেটর ভেহিকেলের পরীক্ষা সফল হয়েছে। দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি স্ক্র্যামজেট প্রোপালশন সিস্টেমের মাধ্যমে এই পরীক্ষা হয়েছে। ডিআরডিওকে ধন্যবাদ। এই বিরাট প্রোজেক্টের সঙ্গে যুক্ত বিজ্ঞানীদের সঙ্গে আমি কথা বলে ধন্যবাদ জানিয়েছি। তাঁদের জন্য গোটা দেশ গর্বিত।’

এক সরকারি আধিকারিক জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে দূরপাল্লার ক্রুজ মিসাইল তৈরির ক্ষেত্রে HSTDV কাজে লাগবে। এছাড়া এই প্রযুক্তির মাধ্যমে খুবই স্বল্প খরচে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপন করা যাবে।