ভারত-চিন ১১ ঘণ্টার ম্যারাথন বৈঠক, সেনা পিছতে রাজি চিন

328

নয়াদিল্লি: কোর কমান্ডার স্তরের ম্যারাথন বৈঠকে সোমবার লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সেনা পিছনোর বিষয়ে (ডিসএনগেজ) ‘পারস্পরিক ঐকমত্যে’ এসেছে ভারত ও চিন সেনা। মঙ্গলবার সেনা সূত্রে খবর, ‘‘পূর্ব লাদাখের চুসুল লাগোয় মলডো অঞ্চলে হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে ইতিবাচক ও গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে।’’ সেনার দাবি, পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় সঙ্ঘাতের ক্ষেত্রগুলি থেকে সেনা পিছোনোর বিষয়ে আলোচনায় সম্মতি দিয়েছে চিন।

সোমবারের বৈঠকে লেহতে মোতায়েন ১৪ নম্বর কোরের লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরেন্দ্র সিংহ এবং চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মির দক্ষিণ শিনজিয়াং মিলিটারি ডিস্ট্রিক্টের মেজর জেনারেল লিন লিউয়ের প্রায় ১১ ঘণ্টা বৈঠক হয়। বৈঠকে গালওয়ান উপত্যকার ১৫ জুনের চিনা হামলা নিয়ে তীব্র প্রতিবাদ জানান হরেন্দ্র। পিএলএ-র তরফে ৪ জুনের কোর কম্যান্ডার স্তরের বৈঠকে সিদ্ধান্ত মানা হয়নি বলেও তথ্যপ্রমাণ পেশ করেন তিনি।

- Advertisement -

সেনা পিছনো ছাড়াও এলএসি বরাবর স্থায়ী বাঙ্কার-সহ বিভিন্ন নির্মাণের কাজ বন্ধ রাখার বিষয়টিতেও চিনা ফৌজের আধিকারিকরা নীতিগত ভাবে সম্মতি জানিয়েছে। গালওয়ান উপত্যকার পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪ এবং ১৫, গোগরা উপত্যকার হট স্প্রিং এলাকার পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৭ এবং প্যাংগং লেকের উত্তরাংশে ফিঙ্গার ৪ থেকে ফিঙ্গার ৮ পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকায় ইতিমধ্যেই স্থায়ী ও অস্থায়ী নির্মাণ করেছে চিন।

ওই বৈঠকে চিনের তরফে এই প্রথম স্বীকার করা হল যে, ১৫ জুনের সংঘর্ষে তাঁদেরও এক কমান্ডিং অফিসারের মৃত্যু হয়েছে। এত দিন চিন সরকারি ভাবে কোনও মৃত্যুর কথা স্বীকার করেনি। চিনের ৪৩ জন হতাহতের কথা ভারতীয় সেনার কোনও কোনও সূত্রে বলা হয়েছিল।

ঠিক এরকম পরিস্থিতিতে আজ মঙ্গলবার ভারতীয় সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরবণে গ্রাউন্ড জিরোর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে যাচ্ছেন। দু’দিনের সফরে গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষে আহত জওয়ানদের দেখতে যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। লাদাখের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ১৪ নং কোরের কম্যান্ডারদের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। সেখান থেকে ফেরার পথে শ্রীনগরে ১৫ নং কোরের সঙ্গেও সন্ত্রাস দমন অভিযান নিয়ে একদফা কথা বলবেন তিনি।

অন্যদিকে, তিন দিনের সফরে আজ মঙ্গলবার মস্কো গিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। সেখানে রাশিয়ার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানিকে হারানোর ৭৫ বর্ষপূর্তির উৎসবে যোগ দেবেন তিনি। চলতি ভূকৌশলগত আলোচনার প্রসঙ্গে ভারত-চিন সীমান্ত প্রসঙ্গও মস্কোতে উঠে আসতে পারে বলেই জানাচ্ছে বিদেশ মন্ত্রক সূত্র।

এছাড়াও, চলতি সপ্তাহেই চিনের সঙ্গে দু’টি কূটনৈতিক বৈঠকে সামিল হবে ভারত। ভারত-চিন সীমান্তে নতুন করে আর হিংসার ঘটনা আপাতত ঘটবে না এটা ধরে নিয়ে, এই সপ্তাহে চিনের সঙ্গে দু’টি কূটনৈতিক বৈঠকে শামিল হচ্ছে নয়াদিল্লি। প্রথমটি অবশ্য দ্বিপাক্ষিক নয়, কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলেই ব্যাখ্যা করছেন কূটনীতিকরা। ভারত-চিন-রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী পর্যায়ের ত্রিপাক্ষিক (আরআইসি বা রিক) ভিডিয়ো বৈঠক। দ্বিতীয়টি, এই সপ্তাহের শেষে ভারত এবং চিনের মধ্যে সীমান্ত নিয়ে আলোচনার ‘ওয়ার্কিং মেকানিজম ফর কনসাল্টেশন অ্যান্ড কোঅর্ডিনেশন’ (ডবলিউএমসিসি)-এর সচিব পর্যায়ের বৈঠক।