লাদাখে ভারত-চিন সেনা সংঘর্ষের ঘটনায় মেজর-জেনারেল স্তরের বৈঠক

593

নয়াদিল্লি: বুধবার দীর্ঘ আলোচনার পরও মিলল না কোনও সমাধানসূত্র। আজ ফের গালওয়ান উপত্যকায় ভারত-চিন মেজর জেনারেল স্তরে বৈঠক অনুষ্ঠিত হল।

প্রসঙ্গত, বহুদিন ধরেই গালওয়ান উপত্যকাকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে চিন। সেই এলাকার আধিপত্য নিয়েই ১৫ জুন অর্থাৎ সোমবার পূর্ব লাদাখের ওই এলাকায় ভারত ও চিনের সেনারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। সংঘর্ষ চলাকালীন দেশের ২০ জন সেনাকর্মী শহিদ হন। জানা গিয়েছে, চিনেরও ৪৩ জন সেনা হতাহত হন।

- Advertisement -

গতকাল এই নিয়ে দিনভর কূটনৈতিক স্তরে বিবাদ মেটানোর চেষ্টা করেও কোনও সামাধানসূত্র মেলেনি। দিনের শেষে সীমান্তে উত্তেজনা রয়েই যায়। গতকাল কেন্দ্রীয় বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ফোনে চিনের বিদেশমন্ত্রী ওয়াং ইয়ির সঙ্গে কথা বলেন। জানা গিয়েছে, তাতেও কিছু সুরাহা হয়নি। চিন পরিকল্পিতভাবে এই হামলা চালিয়েছে, এমনটাই বলেন তিনি।

এদিকে গালওয়ান উপত্যকা থেকে পিছু হঠেনি চিনের সেনাবাহিনী। ওই উপত্যকাটি পূর্ব লাদাখে ভারত ও চিনের মধ্যে থাকা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বা এলএসি-র কাছেই অবস্থিত। আজও সেখানে ভারত-চিন মেজর জেনারেল স্তরে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেনাবাহিনী সূত্রের খবর, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে চিন সীমান্ত সংলগ্ন ডেমচক এবং প্যাংগং লেকের আশপাশের গ্রামগুলি খালি করা হচ্ছে। আরও বেশি করে আধাসেনা আনা হচ্ছে লাদাখে।

বহুদিন ধরেই গালওয়ান উপত্যকাকে নিজেদের বলে দাবি করে আসছে চিন। সোমবারের সংঘাতও সেই এলাকার আধিপত্য নিয়েই। তবে ভারতের তরফে ফের একবার এই বিষয়ে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে গালওয়ান উপত্যকা নিয়ে চিনের এই দাবি অতিরঞ্জিত। তা কখনোই সমর্থনযোগ্য নয়।