প্রসিধ-ক্রুণালদের স্বপ্নের অভিষেকে জয়ী ভারত

সঞ্জীবকুমার দত্ত, কলকাতা : নিজেদের এক নম্বর দল ভাবলে, যে কোনও পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে। প্রথমে ব্যাটিংয়ে চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে কথাগুলি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলছিলেন বিরাট কোহলি। টসের সময় উসকে দেন চার বছর আগে পুনেতে ইংল্যান্ড-বধের পুরোনো স্মৃতিও।

ম্যাচের শুরুটা অবশ্য পুরোদস্তুর আবেগের। ভাই হার্দিকের হাত থেকে ওডিআই অভিষেকের টুপি পেয়ে চোখে জল ক্রুণালের। আকাশের দিকে সদ্যপ্রয়াত বাবার উদ্দেশ্যে যা তুলেও ধরলেন। ব্যাট হাতেও ইংরেজ বোলারদের শাসন করার পথেও বাবাকে বারবার খুঁজলেন ক্রুণাল। মাঠের ধারে বসে চোখ ছলছল হইহুল্লোড়বাজ হার্দিকেরও।

- Advertisement -

শুধু আবেগ নয়, ক্রুণাল ভাসলেন শটের ফুলঝুরিতেও। ৪১তম ওভারে যখন নামেন, দল কিছুটা ব্যাকফুটে। অভিষেকের টেনশন ছুঁড়ে ফেলে ক্রুণালের (৩১ বলে ৫৮) ব্যাটে ভয়ডরহীন ক্রিকেট। ২৬ বলের রেকর্ড গড়া হাফ সেঞ্চুরি! ঈশান কিষান, সূর্যকুমার যাদবের পর আরও এক স্বপ্নের অভিষেক। বল হাতে যে তালিকায় নাম লেখান অভিষেকবয় প্রসিধ কৃষ্ণাও।

অভিষেক-আবেগ, ইয়াঙ্গিস্তানের হুংকারের সামনে হার মানতে বাধ্য হল ইংল্যান্ডও। শিখর-বিরাট-লোকেশের হাফ সেঞ্চুরির পরও ভারতের স্কোরটা ৩১৭-য় পৌঁছোয় না, যদি না ক্রুণাল স্লগ ওভারে ঝড় তুলত। এরপর জেসন রয়-জনি বেয়ারস্টোদের পালটা মারে প্রায় বেলাইন দলের ম্যাচে ফেরা প্রসিধ কৃষ্ণার (৪/৫৪) হাত ধরে। প্রথম স্পেলে বেধড়ক মার খেয়ে দমে যাননি। সুদে-আসলে যা মিটিয়ে নিলেন পরের স্পেলগুলিতে।

ভারতের ৩১৭/৫ স্কোরের জবাবে ইংল্যান্ড একসময় ছিল ১৩৫/০। কিন্তু প্রসিধ-শার্দূলদের (৩/৩৭) প্রত্যাঘাতে ইংল্যান্ড শেষ ২৫১-তে। উত্তেজক ম্যাচের সম্ভাবনা তৈরি হওয়া ম্যাচে ৬৬ রানে অনায়াস জয়। বাকি দুইয়ে একটা ম্যাচ জিতলেও, টেস্ট, টি২০-র পর ওডিআই সিরিজও ভারতের দখলে।