বেয়ারস্টো ঝড়ে ঢাকা পড়ল লোকেশ-ক্লাসিক

সঞ্জীবকুমার দত্ত, কলকাতা : সেঞ্চুরির পর ব্যাটটা আকাশে তুললেন।

হেলমেট খুলে এরপর যা করলেন, সেটাই অভিনব। হেলমেট মাটিতে রেখে দুই আঙুল সোজা কানে! সমলোাচকদের জবাব? শতরানের সেলিব্রেশনে সেই বার্তাই দিলেন লোকেশ রাহুল। পরে বলেন, কাউকে অসম্মানের জন্য করিনি। অনেকেই থাকে, যারা চেষ্টা করে ছোট করতে। এসব এড়িযে যেতে চাই। সেই বার্তাটাই দিলাম।

- Advertisement -

ব্যাটিংয়ের ঝাঁঝটাই কথার মধ্যে বেরিয়ে আসছিল। হবেই বা না কেন, আজ লোকেশের যে বলার দিন। কথায় আছে ফর্ম টেম্পোরারি। ক্লাস পার্মানেন্ট। ইনিংসের পরতে পরতে যার প্রতিফলন। প্রথম ওডিআইয়ে হাফ সেঞ্চুরি। ১, ০, ০, ১৪- টি২০-র ব্যর্থতা ঝেড়ে আজ একেবারে ১০৮। বিরাট কোহলি (৬৬), ঋষভ পন্থকে (৭৭) নিয়ে লোকেশের জোড়া সেঞ্চুরি জুটিতে ভারতের ৩৩৬/৬।

এতকিছুর পরও ম্যাচ হাতছাড়া ভারতের। দুরন্ত জয়ে দলকে নেতত্ব দিলেন জনি বেয়ারস্টো। মঙ্গলবারের ম্যাচে কাজ অর্ধসমাপ্ত রেখে ফিরেছিলেন। এদিন বিরাটদের কামব্যাকের কোনও রাস্তাই খোলা রাখেননি বেযারস্টো। ওপেনিং জুটিতে জেসন রয় (৫৫)-এর সঙ্গে ১১০। বেন স্টোকসের (৯৯) সঙ্গেও ঝড়ের গতিতে ১৭৫ রানের ম্যারাথন যুগলবন্দি। ইংল্যান্ডের যে ব্যাটিং-বিস্ফোরণে ৩৩৬-ও কম পড়ে যায়।

ভারতের বিরুদ্ধে এতদিন ইংল্যান্ডের সর্বোচ্চ ২৬৬ রান তাড়া করে জেতার নজির ছিল। সেটাও ঘটেছিল ১৯৭৪-এ। ঘরের মাঠ লিডসে। ৪৭ বছর টিকে থাকা সেই রেকর্ড লন্ডভণ্ড পুনের এমসিএ স্টেডিয়ামে। সিরিজ ১-১। রবিবাসরীয় ডুয়েলেই ফয়সালা হবে ট্রফি কার।

ইংল্যান্ডের ওপেনিং জুটিই ছিল ভারতের মূল কাঁটা। গত ম্যাচে ১৪.১ ওভারে ১৩৫ তুলেছিল জেসন-জনি জুটি। এদিনও শুরুতে কাঁটা তুলতে ব্যর্থ ভুবনেশ্বর (১/৬৩), প্রসিধ (২/৫৮)-রা। রোহিত শর্মার নৈপুণ্যে ব্রেক থ্রু (জেসন রয় রানআউট) এলেও, জয়ের রাস্তা খোলেনি। স্টোকসকে নিয়ে শুরু থেকে টপ গিযারে গাড়ি ছোটান বেয়ারস্টো। স্টোকসদের মূল টার্গেট ছিল কুলদীপ (০/৮৪)। বিরাটের চায়নাম্যান বোলারকে ছক্কা হাঁকিয়ে তিন অঙ্কে পা রাখেন বেয়ারস্টো। দুর্ভাগ্য স্টোকসের, সেঞ্চুরির ১ রান আগে ফিরতে হয় ভুবির বলে। ১০ ছক্কা ও ৪টি চার, ৫২ বলে ৯৯।

স্টোকস ফিরতেই একটা ক্ষীণ আশার সঞ্চার হয়েছিল। ২৮৫/১ থেকে ইংল্যান্ডকে ২৮৭/৪ করে দেন ভুবনেশ্বর-প্রসিধরা। স্টোকসকে ফেরান ভুবনেশ্বর। প্রসিধের ঝুলিতে বেযারস্টো (১২৪) ও এদিনের অধিনায়ক জস বাটলার (০)। উঁকি মারছিল প্রথম ম্যাচের কামব্যাকের ছবিটা। তবে কোনও অঘটন ঘটতে দেননি লিভিংস্টোন (অপরাজিত ২৭), দায়িদ মালান (অপরাজিত ১৬)। নিটফল, ৩৯ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের বিশাল জয় ইংল্যান্ডের।