মরগ্যান, বিলিংসের খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তা

পুনে : হারের সঙ্গে জোড়া ধাক্কা ইংল্যান্ড শিবিরে।

চোট পেয়ে দ্বিতীয় ম্যাচে অনিশ্চিত অধিনায়ক ইয়োন মরগ্যান, স্যাম বিলিংস। হার্দিক পান্ডিয়ার জোরালো শট বাঁচাতে গিয়ে হাতে চোট পান মরগ্যান। গোটা চারেক স্টিচ করাতে হয়েছে। স্যাম বিলিংস অপরদিকে বাউন্ডারির ধারে ফিল্ডিংয়ে সময় কলারবোনে চোট পেয়েছেন।

- Advertisement -

দলের স্বার্থে মঙ্গলবারের ম্যাচে দুজনেই ব্যাট করেছেন। তবে ইংল্যান্ড টিম সূত্রের খবর, শুক্রবারের ডু অর ডাই ডুয়েছে মরগ্যানদের খেলা ঘিরে প্রশ্নচিহ্ন। গতকাল ম্যাচ শেষে স্বয়ং মরগ্যানও সেই ইঙ্গিত দিয়ে রেখেছিলেন। নিজের চোট প্রসঙ্গে বলেন, ৪৮ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে। তারপরও পরিস্থিতি কী দাঁড়ায় পরিষ্কার হবে। আশা করব শুক্রবার ম্যাচে খেলার মতো অবস্থায় থাকব।

ম্যাচফিট না হলে মরগ্যান, বিলিংসদের নিয়ে ঝুঁকি নেবে না থিংকট্যাংকও। তাছাড়া রিজার্ভ বেঞ্চকে দেখে নেওয়া, সুযোগ দেওয়া গুরুত্ব পাচ্ছে। ফলে ম্যাট পার্কিনসন, রিসে টপলে, লিয়াম লিভিংস্টোনদের দেখা যেতে পারে। ইংল্যান্ড দলপতির মতে, ওডিআই ক্রিকেটে সেরা দল গড়ে তোলার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছি আমরা। নতুনদেরও পরখ করে নেওয়ার বিষয়টি আছে। এদিক থেকে বাকি সিরিজে সুযোগ থাকবে নতুনদের।

৩১৮-র জয়লক্ষ্যে খেলতে নেমে ১৪.১ ওভারে ১৩৫/০। তারপরও ১১৬ রানে শেষ ১০ উইকেট খুইয়ে হার! অতিআক্রমণাত্মক স্ট্র‌্যাটেজিকে অনেকে দুষছেন। মরগ্যান যা মানতে নারাজ। আগ্রাসী ক্রিকেটের পক্ষে জোরালো সওয়াল করেন। তাঁর যুক্তি, আক্রমণাত্মক ক্রিকেটই খেলতে চাই। বিশ্বকাপের দিকে নজর রেখে এটা চালিয়ে যাব। কখনও সব ঠিকঠাক হবে, কখনও নয়। স্ট্র‌্যাটেজি বদলে ১০-২০ রানে হারের চেয়ে আক্রমণাত্মক ক্রিকেটে এভাবে হারটা আমাদের কাছে শ্রেয়। এটাই আমাদের স্টাইল। এভাবেই খেলব।

৬৬ রানে হারা ম্যাচেও পিচের প্রশংসায় মরগ্যান। তাঁর মতে, দুর্দান্ত উইকেট। উত্তেজক ম্যাচ হয়েছে। পেস বোলাররা সাহায্য পেয়েছে। আবার উইকেটে জমে গেলে রান ছিল ব্যাটসম্যানদের জন্য। বেশ কিছু জায়গায় আমরা ঠিক করেছি। পেস বোলাররা দুর্দান্ত বল করেছে। ওপেনাররাও দারুণ ব্যাটিং করল। কিন্তু ওদের তৈরি ভিতে ইমারত গড়তে ব্যর্থ আমরা। এদিনের তুলনায় স্ট্র‌্যাটেজির বাস্তবায়ন আরও ভালোভাবে করতে হবে। তবে ভারত ভালো খেলেছে এবং যোগ্য হিসেবেই জিতেছে।