চার পেসার নিয়ে দোলাচলে কোহলিরা

অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : আপন খেয়ালে বয়ে চলেছে ট্রেন্ট নদী!

ছোট্ট একটা ব্রিজ পার করলেই ট্টেন্ট নদীকে ডান দিকে রেখে নজরে পড়বে ট্রেন্ট ব্রিজ ক্রিকেট মাঠ। র‌্যাডক্লিফ রোড ও ওয়েস্ট ব্রিজফোর্ডের সংযোগস্থলের উপর ক্রিকেটের বহু স্মৃতি নিয়ে দাঁড়িয়ে এই স্টেডিয়াম। ভারতীয় ক্রিকেটের মণিমানিক্যও কম নেই এখানে।

- Advertisement -

১৯৯৬ সালে কেরিয়ারের দ্বিতীয় টেস্টে এই মাঠে দ্বিতীয় শতরান করেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। ২০১৮ সালে টিম ইন্ডিয়ার শেষ ইংল্যান্ড সফরে এই মাঠে ২০৩ রানে টেস্ট জিতেছিলেন বিরাট কোহলিরা। ম্যাচের সেরা হওয়ার পাশে অধিনায়ক কোহলি শতরানও করেছিলেন।

কিন্তু এবার কোহলির সংসারেও অস্বস্তি কম নেই। মানসিকভাবেও কি কিছুটা পিছিয়ে পড়েছে টিম ইন্ডিয়া? কে জানে। ড্রয়ের জন্য খেলব না, জিততে চাই সিরিজ- স্কাই স্পোর্টসে গতকাল ক্যাপ্টেন কোহলিকে সতীর্থদের চাঙ্গা করার জন্য এমন মন্তব্য করতে হয়েছে। মাঠে নামার আগেই কেন অধিনায়ককে এমন ইনটেন্ট দেখাতে হল, তা নিয়ে জল্পনা চলছে। যদিও তার আগে কোহলি-রবি শাস্ত্রী জুটি এখন প্রথম একাদশ নির্বাচনের গোলকধাঁধায়। ট্রেন্ট ব্রিজের সবুজ বাইশ গজ সবদিক থেকে ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টকে সমস্যায় ফেলে দিয়েছে। উপরি হিসেবে রয়েছে নটিংহ্যাম টেস্টজুড়ে বৃষ্টির ভ্রকূটি। কথাতেই আছে, ইংলিশ সামারের মতিগতি বোঝা ভার। মেঘ-রোদের লুকোচুরি অনেকটা নারীর মনের মতো। যার তল পাওয়া সহজ নয়।

এমন পরিস্থিতিতে চার না তিন পেসার, রাত পর্যন্ত সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করতে পারেনি টিম ইন্ডিয়া। তবে ইঙ্গিত মিলেছে, চার পেসারের সম্ভাবনাই বেশি। যার মধ্যে মহম্মদ সামি, ইশান্ত শর্মা ও জশপ্রীত বুমরাহ নিশ্চিত হলেও চতুর্থ পেসারের দৌড়ে রয়েছেন মহম্মদ সিরাজ ও শার্দূল ঠাকুর। দলের ব্যাটিং গভীরতার লক্ষ্যে হঠাৎই শার্দূলের নাম উঠে এসেছে। গতকাল রাহানের পর আজ ক্যাপ্টেন কোহলিও ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন শার্দূলকে। আর এক স্পিনার হিসেবে খেলবেন রবিচন্দ্রন অশ্বীন।

জমজমাট লড়াইয়ে মঞ্চ কার দখলে যায়, তারই অপেক্ষা শুরু কাল।