পরিস্থিতিতে না বদলালে বিশ্বকাপ সরানোর পক্ষে কামিন্স

নয়াদিল্লি : আইপিএল বন্ধের আগে এক। বন্ধের পর আর একরকম।

আবারও উলটো সুর প্যাট কামিন্সের গলায়। আইপিএল আয়োজন নিয়ে বেসুরে গেয়েছেন। এবার অক্টোবরে ভারতে হতে চলা টি২০ বিশ্বকাপ নিয়ে পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন, কোভিড পরিস্থিতি উন্নতি না হলে, ভারত থেকে বিশ্বকাপ সরিয়ে নেওয়া উচিত।

- Advertisement -

অজি সংবাদমাধ্যমকে অজি স্পিডস্টার বলেছেন, এখনও মাস ছয়েক রয়েছে। এত তাড়াতাড়ি টি২০ বিশ্বকাপ কোথায় হবে, তা বলা বাড়াবাড়ি। এব্যাপারে ভারত সরকার ও বিসিসিআই কর্তাদের সঙ্গে নিশ্চয় আলোচনা চালাচ্ছে আইসিসি। আমার মতে, ভারতের সাধারণ মানুষের জন্য যা ভালো, সেটাই করা উচিত। তবে ৬ মাসে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে, ভারতে বিশ্বকাপ না করাই ভালো। ব্যাকআপ হিসেবে ইউএই-র কথা ভাবা যেতে পারে।

করোনা কালে আইপিএল আয়োজন নিয়ে ঘরে-বাইরে সমালোচিত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। এব্যাপারে কামিন্সের মত, অনেকে প্রশ্ন তুলছেন করোনা আবহের মধ্যে আইপিএল কেন? আবার কারও কারও কাছে কঠিন সময়ে আইপিএল ছিল কয়েক ঘণ্টার বিনোদন। কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে বাড়িতে বসে স্ট্রেস কমানোর মাধ্যম। লিগ নিয়ে বেশিরভাগ প্রতিক্রিয়াই পজিটিভ। গত বছর ইউএই-তে সফলভাবে লিগ হয়। এবারও দুর্দান্ত ব্যবস্থাপনা ছিল। তাই আইপিএলে খেলার সিদ্ধান্ত ঠিকই নিয়েছিলাম।

অজি ক্রিকেটারদের অস্থায়ী ঠিকানা আপাতত মালদ্বীপ। সেখানেই ম্যাক্সওয়েল, স্মিথদের সঙ্গে কোয়ারান্টিনে থাকবেন কামিন্সও। ১৫ মে নিষেধাজ্ঞা উঠলে দ্বীপরাষ্ট্র থেকেই অস্ট্রেলিয়াগামী বিমানে উঠবেন অজিরা। আইপিএল বাতিলের দুদিনের মধ্যেই ম্যাক্সওয়েলদের জন্য এই ব্যবস্থা করেছে বিসিসিআই। যে প্রসঙ্গে এক বিজ্ঞপ্তিতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, দায়িত্ব নিয়ে মাত্র দুদিনে অস্ট্রেলীয়দের মালদ্বীপে পাঠানোর ব্যবস্থা করেছে বিসিসিআই। এরজন্য ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের তরফে ধন্যবাদ।

ম্যাক্সওয়েলদের স্বস্তি দিয়ে নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা বাড়ানো হবে না বলে জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। আশ্বস্ত করে মরিসন এদিন বলেন, নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা বাড়ানোর প্রয়োজন নেই। অর্থাৎ ১৫ মের পর (চলতি নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা) দেশে ফিরতে সমস্যা হবে না আইপিএলে অংশগ্রহণকারী অজিদের।