মিশন শ্রীলঙ্কায় শিখতে চান কোচ দ্রাবিড়ও

মুম্বই : দলে একঝাঁক নতুন মুখ।

অনভিজ্ঞ হলেও, প্রতিভার অভাব নেই। অধিনায়ক শিখর ধাওয়ানের বিশ্বাস, আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরে সেই প্রতিভার বিচ্ছুরণ ঘটবে। কোচ রাহুল দ্রাবিড়ের কাছে আবার শিক্ষণীয় সফর। ক্রিকেটাররাই শুধু নন, কোচ হিসেবে শিখতে চান রাহুল দ্রাবিড় নিজেও!

- Advertisement -

বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন মূল দল ইংল্যান্ডে। শিখরের নেতৃত্বে দ্বিতীয় দলটি আগামীকাল শ্রীলঙ্কার উদ্দেশ্যে রওনা দেবে। তার প্রাক্কালে আজ মুম্বইয়ে বিকেলের ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে মুখোমুখি কোচ-অধিনায়ক। যেখানে শিখর বলেন, বেশ ভালো দল হয়েছে। প্রত্যেকেই আত্মবিশ্বাসী। নতুন চ্যালেঞ্জ। প্রতিভা দেখানোর দারুণ সুযোগও। ১৩-১৪দিন কোয়ারান্টিনের পর সবাই এখন মাঠে নামার জন্য ছটফট করছে।

টি২০ বিশ্বকাপর আগে সফর। ফলে বাড়তি গুরুত্ব। রুতুরাজ গায়কোয়াড়, দেবদূত পাডিক্কালদের মতো তরুণ তুর্কিদের দিকে নজড় থাকবে। আকর্ষণের কেন্দ্রে অবশ্য প্রথমবার সিনিয়ার জাতীয় দলের কোচের দায়িত্বে থাকা দ্রাবিড়। সফরকে ঘিরে ইতিমধ্যেই পরিকল্পনা সাজিয়েছেন। এদিন সেই ভাবনা ভাগ করে নিলেন রাহুল দ্রাবিড়।

কোচিংয়ের দায়িত্ব

দলে অভিজ্ঞ ও নতুনের সঠিক মিশ্রণ ঘটেছে। প্রত্যেকের জন্য শেখার সুযোগ। দলের মধ্যেও সেই পরিবেশটা তৈরি করতে চাই। আর একজন কোচের কাছে প্রতিটি অভিজ্ঞতাই গুরুত্বপূর্ণ। শ্রীলঙ্কা সফর তাই আমার জন্য নতুন কিছু শেখা এবং উন্নতির আরও একটা মঞ্চ।

সিরিজ ও বিশ্বকাপ-ভাবনা

অনেকেই রয়েছে, যারা বিশ্বকাপ দলে জায়গা পাকা করতে মরিয়া। তবে মূল লক্ষ্য সিরিজ জয়। আশাকরি, প্রত্যেকে সেই লক্ষ্যপূরণের পাশাপাশি নির্বাচকদেরও নজর কাড়বে। বিশ্বকাপের আগে তিনটি টি২০ ম্যাচ পাচ্ছি। এরপর আইপিএল। দুজন নির্বাচক সফরে যাচ্ছেন আমাদের সঙ্গে। পাশাপাশি ইংল্যান্ডে থাকা টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গেও যোগাযোগ থাকবে।

প্রত্যেককে সুযোগ

সংক্ষিপ্ত সিরিজ। ফলে দলের সবাইকে খেলানো অসম্ভব। উইনিং কম্বিনেশনকে গুরুত্ব দিতেই হবে। অবশ্য সবাই যদি খেলার সুযোগ নাও পায়, তাদের জন্য থাকছে শিখরের মতো সিনিয়ারের কাছ থেকে প্রচুর শেখার সুযোগ।

দুই দেশে দুই দল

আমরা এখন অন্যরকম পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। সামনে কী অপেক্ষা করছে বলা কঠিন। এরকম পরিস্থিতিতে এভাবে সংক্ষিপ্ত সফরের কথা ভাবা যেতেই পারে। ভারতের সামনে এছাড়া বিকল্পও ছিল না। তবে এটা দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের রাস্তা কীনা বলা মুশকিল। তা করতে গেলে বিস্তারিত আলাপ-আলোচনার প্রযোজন।

পৃথ্বী শ ও তরুণ ব্রিগেড

পৃথ্বী ছাড়াও দেবদূত, রুতুরাজদের কথাও বলব। ওরাও বিশ্বকাপ ডাক পাওয়ার আশায়। নির্বাচনের বিষয়টি নির্বাচকরাই ঠিক করবেন। তবে সর্বোচ্চ পর্যায়ে সাফল্য ওদের সাহায্য করবে, এগিয়ে দেবে। পাশাপাশি মাথায় রাখতে হবে, ব্যর্থ হলেই সব শেষ নয়। কারণ আরও সুযোগ আসবে সবার কাছেই।