মেসেজিং অ্যাপ ‘SAI’ বানাল ভারতীয় সেনা

257

নয়াদিল্লি: নিজেদের ব্যবহারে হোয়াটসঅ্যাপের মতো একটি মেসেজিং অ্যাপ বানিয়ে ফেলল ভারতীয় সেনা। ভারতীয় সেনার এই ইন-হাউজ অ্যাপটির নাম দেওয়া হয়েছে সিকিওর অ্যাপলিকেশন ফর ইন্টারনেট (SAI)।

ভারতীয় সেনা সূত্রে খবর, রাজস্থানের সিগন্যাল ইউনিটের কমান্ডিং অফিসার কর্নেল সাই শংকর এই অ্যাপটি তৈরি করেছেন। এই মেসেজিং অ্যাপটির উদ্বোধন করে বৃহস্পতিবার প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, এটি এন্ড-টু-এন্ড সিকিওর মেসেজিং অ্যাপ। অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে ভয়েজ, টেক্সটের পাশাপাশি ভিডিও কলও করা যাবে এতে। তবে এই অ্যাপটি শুধুমাত্র ভারতীয় সেনার নিজস্ব ব্যবহারের জন্যই বানানো হয়েছে। সেনার নিজস্ব তথ্য যাতে ফাঁস না হয়, সেইসব বিবেচনা করেই এটি তৈরি করা হয়েছে।

- Advertisement -

প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, CERT-এর অডিটর এবং আর্মি সাইবার গ্রুপ এই অ্যাপটি নিয়ে পরীক্ষা করছে। ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি রাইটসে এই অ্যাপটির নথিভুক্তকরণের কাজ চলছে। ডিজিটাল ইন্ডিয়া গঠনের বিভিন্ন কাজে জড়িত ন্যাশনাল ইনফরমেটিকস সেন্টার বা NIC এই অ্যাপের জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামোর জোগান দিচ্ছে। বর্তমানে iOS প্ল্যাটফর্মে এই অ্যাপটির কাজ চলছে। অ্যাপটির কার্যকারিতা দেখার পর প্রতিরক্ষা মন্ত্রক কর্নেল সাই শংকরকে এই অ্যাপলিকেশনটি তৈরির জন্য এবং তাঁর দক্ষতা ও উদ্ভাবনী ক্ষমতার প্রশংসা করেছে।

প্রসঙ্গত, গত বছর ভারতীয় সেনার তরফে এক নির্দেশিকায় অফিসিয়াল কাজকর্মে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করতে বারণ করা হয়। এমনকি ফেসবুক থেকেও সেনাকে অ্যাকাউন্ট ডিলিট করতেও বলা হয়েছিল। অতীতে একাধিক সেনা অফিসরা হানিট্র্যাপে পা দেওয়ার কারণেই এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। ২০১৮ সালে দিল্লিতে ভারতীয় বায়ুসেনার সদর দপ্তরে কর্মরত গ্রুপ ক্যাপ্টেন পাক মহিলা গুপ্তচরের হানিট্র্যাপে পড়েছিলেন। তবে এই মেসেজিং অ্যাপটির নামেই স্পষ্ট এটি অনেক বেশি সুরক্ষিত। আন্তর্জালে তথ্যচুরির কোনও ভয় নেই।