নতুনদের সুযোগ দিতে পেরে খুশি স্টিমাক

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : শক্তিশালী ওমানের বিরুদ্ধে যেভাবে চোখে চোখ রেখে লড়ে গিয়েছে তাঁর দল, তার জন্য খুশি তো বটেই। তবে ভারতীয় দলের কোচ ইগর স্টিমাক বেশি খুশি একসঙ্গে দশজন তরুন ফুটবলারকে দলে সুযোগ দিতে পেরে।

ভারতীয় ফুটবলে নতুন প্রজন্ম যে কড়া নাড়তে শুরু করেছে, সেটা বোঝা গিয়েছিল এবারের সদ্য শেষ হওয়া আইএসএলেই। বৃহস্পতিবারের ওমান ম্যাচ নবীনের পদক্ষেপকে আরও দৃঢ় করে তুললো যেন। যা দেখেশুনে স্টিমাক বলে দিলেন, আমার দল দারুন প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে ওমানের মতো দলের বিরুদ্ধে। ওরা যা যা করা দরকার ছিল, সবই করেছে। হয়ত আরও ভালো করতে পারত। কিন্তু আমি এটুকু বলতে পারি ১০ জন নতুনের পারফরমেন্স দেখে আমি অসম্ভব খুশি। ওরা প্রত্যেকে নিজেদের সেরাটা মেলে ধরেছে।

- Advertisement -

এর জের টেনেই স্টিমাক বলেন, ওমানের ফুটবলাররা অনেকবেশি শক্তিশালী। প্রচন্ড কড়া ট্যাকল করছিল। আমাদের দলে বেশ কয়েজন দ্রুত গতির ফুটবলার রয়েছে। কিন্তু ওরাও ওমানের ডিফেন্ডারদের টপকাতে পারছিল না। এর থেকেই বোঝা যায় যে আমাদের এখনও অনেক পরিশ্রম করতে হবে। পেশির শক্তি বাড়াতে হবে অনেকটা। এদেশের মানুষ যে বৃহস্পতিবারের ম্যাচ দেখার পরে নতুন ভারতীয় দল বলতে শুরু করেছেন, এতে আপ্লুত ১২ বছর খেলার পরে জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়া আশুতোষ মেহতা। তাঁর মন্তব্য, ১২ বছরের লম্বা অপেক্ষার পরে যে সুযোগ পেলাম তাতে আমি এত খুশি যে বলে বোঝাতে পারব না। এরকম একটা দাযিত্ব কাঁধে নেওয়াও আধারণ এক অভিজ্ঞতা। যে গোলটা আমরা করেছি সেটা নিজেদের খেলা তৈরি করে নিতে পারার দক্ষতার জন্য। গোলের বলটা প্রথম তৈরি করে দেন আশুতোষই।

পরের ম্যাচটা আরও বেশি শক্তিশালী সংযুক্ত আরব আমীরশাহীর বিরুদ্ধে। সোমবার রাতের এই ম্যাচ প্রসঙ্গে স্টিমাকের মন্তব্য, আমরা দ্বিতীয়ার্ধে এটা বোঝাতে পেরেছি যে বেশি ভয় পাওয়ার মতো কিছু নেই। তবে এটা ঠিক যে আরব আমীরশাহী আরও অনেকবেশি ভালো দল। ফিফার তালিকায় প্রথম একশোয় যারা থাকে তাদের সঙ্গে ২০-র বেশি পার্থক্য মানে অনেকটাই। একটা বিরাট পার্থক্য থাকবেই ওদের সঙ্গে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে আমরা ভালো করতে পারব না। আমরা যে পারি সেটা ওমানের বিরুদ্ধে দেখিয়ে দিয়েছি। এরপরের আবার নতুনকরে শুরু করতে হবে। বাকিদের সুযোগ দেওয়ার ভাবনা রয়েছে। কারন আমরা এখানে এসেছি সবাইকে খেলিয়ে দেখে নিতে।