মিশন টোকিও, পুরোদমে অনুশীলন শুরু রানির

বেঙ্গালুরু : করোনাকে হারানোর মাসখানেকের মধ্যে পুরোদমে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন জাতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক রানি রামপাল। বেঙ্গালুরুর সাই সেন্টারে আরও ২৪ সতীর্থর সঙ্গে টোকিও অলিম্পিকে নজর কাড়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন তিনি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তাঁর করা গোলেই টোকিওর টিকিট পেয়েছে ভারত। তবে একমাস আগে করোনা সংক্রামিত হওয়ার পর পরিস্থিতি একেবারেই অন্যরকম ছিল। রানির কথায়, করোনামুক্ত হওয়ার পর ১৪ দিন কোয়ারান্টিনে ছিলাম। তারপর ধীরে ধীরে অনুশীলন শুরু করি। চিকিৎসকরা আমাকে অনুশীলনে বেশি পরিশ্রম করতে নিষেধ করেছিলেন। তবে প্রায় একমাস হল আমি সুস্থ হয়েছি। তাই পুরোদমে অনুশীলন করছি। দ্রুত অনুশীলন শুরুর জন্য নিজের রুটিনও বদলে ফেলেছেন রানি। তাঁর কথায়, প্রথমদিকে কাজটা বেশ কঠিন ছিল। দ্রুত শক্তি ফুরিয়ে যেত। করোনা-পরবর্তী দুর্বলতাও ছিল। তাই আমি পুষ্টিকর খাবার, সময়ে ঘুমাতে যাওয়া ও শরীরে জলের ভারসাম্য ঠিক রাখার মতো বিষয়গুলির উপর জোর দিই।

- Advertisement -

অলিম্পিকের সময়ে টোকিওর তাপমাত্র অ্যাথলিটদের মাথাব্যথা হতে চলেছে। অনুশীলনের সময় সেই বিষয়টি মাথায় রাখছে টিম ম্যানেজমেন্ট। খেলরত্নজয়ী ফরোয়ার্ড রানির কথায়, সাধারণ সময়ের পাশাপাশি আমরা রোজ একঘণ্টা তীব্র তাপমাত্রার মধ্যে অনুশীলন করছি। সাধারণত সাড়ে দশটা বা ১১টা থেকে দুঘণ্টা অনুশীলন করি। এছাড়া সন্ধ্যাতেও সেশন হয়। তবে প্রতিপক্ষ হিসেবে কোনও বিশেষ দেশকে মাথায় রাখছেন না তাঁরা। বললেন, আমরা কোনও বিশেষ প্রতিপক্ষের দিকে ফোকাস করছি না। আমরা প্রতিটি ম্যাচ ধরে এগোতে চাই। প্রথম দুই ম্যাচে নেদারল্যান্ডস ও জার্মানির বিরুদ্ধে খেলব। এখন এটুকুই মাথায় আছে। আমরা প্রথমে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করতে চাইছি।

রানিদের সাম্প্রতিক ফর্ম খুব একটা ভালো নয়। জার্মানি ও আর্জেন্টিনা সফরে দল একটা ম্যাচও জেতেনি। কিন্তু ম্যাচ হারলেও প্লেয়ারদের পারফরমেন্স উন্নত হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। একইসঙ্গে টোকিওয় ভালো ফলের বিষয়ে আশাবাদী। বললেন, আমরা যে কোনও দলের বিপক্ষে খেলতে তৈরি। ফিটনেসের ক্ষেত্রেও আমরা উন্নতি করেছি। এই বিভাগে ইউরোপের দলগুলি আমাদের থেকে অনেকটা এগিয়ে ছিল। সেই ব্যবধান আমরা কমিয়ে এনেছি।

টোকিওয় রানির আশা পূরণ হোক, চাইছে দেশবাসীও।