ঘুমের মাঝেই চিরঘুমের দেশে আখতার আলি

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : চলে গেলেন ভারতীয় টেনিসের অন্যতম কিংবদন্তি আখতার আলি। শনিবার রাতে ঘুমের মধ্যেই চিরঘুমের দেশে পাড়ি দিলেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮১।

 

- Advertisement -

বেশ কিছুদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন আখতার। ভর্তি হতে হয়েছিল হাসপাতালেও। সেখান থেকে ছাড়া পেয়ে মেয়ের বাড়িতে ফেরার পরই তিনি পাড়ি দিলেন না ফেরার দেশে। আখতার আলির মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। টুইটারে তিনি লেখেন, আখতার আলির মৃত্যুতে শোকাহত। সত্যিকারের টেনিস কিংবদন্তি ছিলেন। আখতার স্যর বহু তারকা তৈরি করেছিলেন। আমি গর্বিত ২০১৫ সালে ক্রীড়াক্ষেত্রে বাংলার সেরার পুরষ্কার তাঁর হাতে তুলে দিতে পেরে। বেলার দিকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে আখতারের বাড়িতে হাজির হয়েছিলেন রাজ্যের ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। তিনিও গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। টেনিস দুনিয়াতেও আখতারের মৃত্যুতে শোকের ছায়া। সর্বভারতীয টেনিস সংস্থার তরফেও আখতার আলির মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করা হয়েছে।

১৯৩৯ সালের ৫ জুলাই জন্মেছিলেন। ভারতীয় টেনিসকে দুনিয়ার দরবারে তুলে ধরার ক্ষেত্রে আখতার আলির অবদান অনস্বীকার্য। নিজে ক্রীড়াবিদ হিসেবে যেমন দীর্ঘসময় ডেভিস কাপে দেশকে সফল করেছেন, তেমনই টেনিস পরবর্তী জীবনে কোচিংয়ের সঙ্গেও জড়িয়েছিলেন সক্রিয়ভাবে। ১৯৫০ সাল থেকে দীর্ঘসময় ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেছেন আখতার। সিঙ্গলস ও ডাবলস, দুই ফর্মাটেই তিনি ছিলেন পারদর্শী। ১৯৫৫ সালে জাতীয় যুব চ্যাম্পিয়ান হয়েছিলেন তিনি। আবার যুব উইম্বলডনে সেমিফাইনাল খেলার গৌরবও অর্জন করেছিলেন প্রয়াত টেনিস তারকা। ডেভিস কাপে ৯-২ রেকর্ড রয়েছে আখতারের ঝুলিতে। বিজয় ও আনন্দ অমৃতরাজ, লিয়েন্ডার পেজ, রমেশ কৃষ্ণনদের মতো ভারতীয় টেনিসের কিংবদন্তিদেরও নানা সময়ে কোচিং করিয়েছেন তিনি। সানিয়া মির্জার সঙ্গেও তাঁর দারুণ সম্পর্ক ছিল শেষদিন পর্যন্ত। ২০০০ সালে অর্জুন পুরষ্কারে সম্মানিত হন তিনি।

আখতারের পুত্র জিশান আলিও প্রাক্তন টেনিস তারকা। তিনিও তাঁর প্রয়াত বাবার মতোই দীর্ঘসময় দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। অংশ নিয়েছেন ডেভিস কাপেও। কোচিংয়ের সঙ্গেও যুক্ত জিশান। তবে সাউথ ক্লাব থেকে শুরু করে আখতার যেভাবে নিজের কেরিয়ারকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন ভিন্ন উচ্চতায়, সেই ধারা বজায় রাখতে পারেননি পুত্র জিশান। যদিও তার জন্য আজ আর আক্ষেপ নেই তাঁর। প্রতিভা তুলে আনার লক্ষ্যে প্রয়াত আখতার আলি একটি প্রতিযোগিতারও আয়োজন করতেন। আগামীদিনে পুত্র জিশান সেই প্রতিযোগিতার ধারা বজায় রাখেন কি না, সেটাই দেখার।