মহাসপ্তমীর দিন থেকে দাসাই পরবে সামিল হলেন আদিবাসীরা

552

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: চিরাচরিত রীতি মেনে দুর্গোৎসবের মহাসপ্তমীর দিন থেকে দাসাই পরবে মাতোয়ারা হলেন পূর্ব বর্ধমানের আদিবাসীরা। তাঁদের কাছে এই পরবের মাহাত্ম্যই আদালা। বর্ণ হিন্দুরা দুর্গাপুজোয় আনন্দে মাতোয়ারা হলেও আদিবাসী জনগোষ্ঠীর কাছে দুর্গাপুজো হল শোকের সময় ।আদিবাসীদের কাছে দুর্গার পরিচিতি হুদুড় দুর্গা নামে। নাচের মাধ্যমে তাঁরা দুর্গা অর্থাৎ হুদুড় দুর্গাকে এইসময়ে খুঁজে বেড়ান। ছদ্মবেশে সেই হুদুড় দুর্গাকে খুঁজে বেড়ানোর পরবই আদিবাসী জনগোষ্ঠীর কাছে দাসাই পরব নামে পরিচিত। এই সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সহ-সভাধীপতি দেবু টুডু নিজে জামালপুরের মুহিন্দর গ্রামে অনুষ্ঠিত দাসাই পরবের নাচে গানে অংশ নেন। তিনি সকল আদিবাসীকে দাসাই পরবে সামিল হবার বার্তা দেন।

আদিবাসী সমাজের একাংশ মনেকরেন তাঁরা মহিষাসুরের বংশধর। ২০১১-র জনগননা অনুযায়ী গোটা দেশে এখনও অসুর জনজাতির মানুষের বসবাস রয়েছে। এই আদিবাসী জনজাতির লোকজন মহিষাসুরের পুজারী। তাই দুর্গাপুজোর সময়ে তাঁরা মহিষাসুর অর্থাৎ হুদুড় দুর্গার পুজো করেন। রাঢ়বঙ্গ সহ উত্তরবঙ্গের অসুর জনজাতির মানুষজন বিশ্বাস করেন দুর্গা আসলে কোন নারী শক্তি নয়। তাঁদের মতে দুর্গা শক্তিশালী বলবান পুরুষ। সেই কারণে তাঁদের কাছে দুর্গা হুদুড় দুর্গা নামেই পরিচিত।

- Advertisement -

আদিবাসী জনজাতীর মানুষজন বিশ্বাস করেন অনার্যদের দেবতা হলেন অসুর। আর্যরা কখনই অনার্যদের দেবতা হুদুড় দুর্গার সঙ্গে পেরে উঠছিলেন না। তাই দেবীরুপী দুর্গাকে সামনে এগিয়ে দিয়ে মহিষাসুরের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন দেবতারা। তাঁদের মতে চিরাচরিত দুর্গা পূজার কাঠামোয় অসুরকে যতই অত্যাচারী দেখানো হোক না কেন, বাস্তবে মহিষাসুর ছিলেন ঠিক তাঁর উল্টোটাই। যুদ্ধে অসুর কোন মহিলা ও শিশুদের আঘাত করতেন না। সেই দুর্বলতা জেনে দেবতারা বিজয়লাভ করার জন্য প্রতাড়ণার আশ্রয় নিয়ে দুর্গাকে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন অসুরের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য। নিজের নীতিতে অবিচল মহিষাসুর তাই দুর্গার কাছে পরাজিত হতে বাধ্য হন। এই বিশ্বাসে ভর করেই আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষজন দুর্গাপুজোর সময়ে ছদ্মবেশে নাচের মাধ্যমে তাঁদের অনার্য ভগবানকে খুঁজে বেড়ান। মূলত ভাদ্র মাস শেষ হতেই আদিবাসী মহল্লায় শুরু হয়ে যায় দাসাই পরব। পুরুষরা নারী সেজে ধামসা ও মাদল নিয়ে দাসাই নাচে মাতোয়ারা হন। দশমী পর্যন্ত চলে এই দাসাই পরব।

আদিবাসী অসুর জনজাতির লৌকিক জনশ্রুতি অনুযায়ী,অসুররা এই দেশের প্রাচীন জনজাতি। তাদের নেতার নাম ছিল ‘‌হুদুড়’ দুর্গা’‌ অর্থাৎ ‘‌মহিষাসুর’‌। সাঁওতালি ভাষায় দুর্গা পুংলিঙ্গ। সাঁওতালি ভাষায় ‘‌হুদুড়’‌ কথার অর্থ প্রচণ্ড জোরে বয়ে চলা বাতাস। আর্য সেনাপতি ইন্দ্র ছলনা ও কৌশলের আশ্রয় নিয়ে এক দেবীকে হুদুড় দুর্গার কাছে পাঠান। ওই দেবী হুদুড় দুর্গাকে বিয়ে করার পর নবমীর দিন হুদুড় দুর্গাকে হত্যা করেন। সেই কারণে ওই দেবী দুর্গাদেবী নামে পরিচিতি পান।

অসুর জনজাতির মানুষজন এই লোককথাকে বিশ্বাস করেই শতকের পর শতক দুর্গোৎসবের চারদিন শোকের পরব দাসাই পালন করে আসছেন। আদিবাসী পুরুষেরা নারীর বেশে, মাথায় ময়ূরের পুচ্ছ লাগিয়ে বুক চাপড় ‘ভুয়াং’ নাচের মাধ্যমে গ্রামে গ্রামে দুঃখের গান গেয়ে এই সময়ে খুঁজে বেড়ান তাদের মহিষাসুর বা হুদুড় দুর্গাকে।

জেলা পরিষদের সহ-সভাধিপতি দেবু টুডু এদিন বলেন, ‘আদিবাসী সংস্কৃতির অনেক কিছুই এখন হারিয়ে যেতে বসে। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার চিরাচরিত সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখতে চান।’

আদিবাসী সমাজের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পরব দাসাই পরব। সেই পরবকে সামনে রেখেই নিজেদের সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখার প্রচেষ্টা স্বরুপ তিনি নিজে মহাসপ্তমির দিন থেকে দাসাই পরবের অনুষ্ঠানে সামিল হয়েছেন। এই পরবকে সামনে রেখে পুজোর চারটে দিন তিনি জেলার বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে ঘুরে নাচে গানের মাধ্যমে আদিবাসী সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখার বার্তা তরুণ প্রজন্মের কাছে পৌছে দিতে চান।