থমকে থাকা ক্রান্তি-ওদলাবাড়ি সড়কের কাজ পুনরায় চালু করতে উদ্যোগ

345

ক্রান্তি: জমি জটে আটকে গিয়েছিল ক্রান্তি-ওদলাবাড়ি রাজ্য সড়ক সম্প্রসারণের কাজ। জানা গিয়েছে, রাজাডাঙ্গার কাঠামবাড়ি থেকে কাঁঠালগুড়ি মোড় পর্যন্ত প্রায় সাত কিমি রাস্তা সম্প্রসারণের কাজ শুরু হতেই ভূমিহারদের বাধার সম্মুখীন হয়ছিল রাস্তার কাজের বরাতপ্রাপ্ত ঠিকাদার সংস্থা। আর তাতেই থমকে গিয়েছিল সড়ক সম্প্রসারণের কাজ। অচলাবস্থা কাটাতে শনিবার রাজাডাঙ্গার কাঁঠালগুড়ি মোড় এলাকায় একটি বৈঠক করা হয়। দ্বিপাক্ষিক ওই বৈঠকে অংশ নিয়েছিলেন সড়ক নির্মাণ কাজের বরাতপ্রাপ্ত ঠিকাদার সংস্থার ম্যানেজার ও ভূমিরক্ষা কমিটির সদস্যরা। উভয়পক্ষের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ বৈঠক হয়। তাতেই সমাধানসূত্র বেরিয়ে আসে এবং আটকে থাকা রাস্তার কাজ পুনরায় শুরু হওয়ার ইঙ্গিত মেলে। ঠিকাদার সংস্থার ম্যানেজারও দ্রুত কাজ শুরু করার ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

এদিন সফল বৈঠকের পর এলাকার আন্দোলনকারী ভূমিরক্ষা কমিটির তরফে আবেদ আলি, জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরি, বিপুল সরকার, হায়দার আলি, সামাদুল ইসলামরা বলেন, ‘কাঠামবাড়ি থেকে কাঁঠালগুড়ি মোড় পর্যন্ত রাস্তার কাজে ব্যবহৃত জমি পিডাব্লিউডি কর্তৃপক্ষ কৃষকদের কাছ থেকে অধিগ্রহণ করে বিনা বাধায় বহু বছর আগে পাকা রাস্তা তৈরি করেছিল। কিন্তু এখন সড়ক সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনের অতিরিক্ত কৃষিজমি কাজে লাগিয়েছে। ইতিপূর্বে প্রশাসনের মধ্যস্থতায় বৈঠকে স্থির হয়েছিল যে, রাস্তা সম্প্রসারণের কাজ ৩০ ফুটের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। কিন্তু ঠিকাদার সংস্থা প্রশাসনের বেঁধে দেওয়া সীমারেখার বাইরে গিয়ে রাস্তা সম্প্রসারণের কাজে হাত দিয়েছিল। আর এই কারণেই আমরা আপত্তি তুলেছিলাম। তবে ঠিকাদার সংস্থা ভুল স্বীকার করে নেওয়ায় এবং বৈঠকে সংস্থার ম্যানেজার ৩০ ফুটের মধ্যে রাস্তা সম্প্রসারণের কাজ সীমাবদ্ধ রাখার ও জমির মালিকদের নিয়ে কমিটি গঠনের মাধ্যমে কাজ করার এবং কাঁঠালগুড়ি মোড় এলাকার দোকানদারদের সরানোর ক্ষেত্রে প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় তাঁরা আন্দোলন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

- Advertisement -

এই প্রসঙ্গে ঠিকাদার সংস্থার ম্যানেজার তসলিম আনসারি রাস্তা সম্প্রসারণের কাজে ৩০ ফুটের বেশি কৃষিজমি ব্যবহার করার অভিযোগ প্রেক্ষিতে এটি অনিচ্ছাকৃত ভুল বলে স্বীকার করে নিয়ে জানান, রাস্তার পাশে গার্ডওয়াল তৈরির কাজে বড় মেশিন ব্যবহারের ফলেই এমনটা হয়েছে। এই ধরনের ভুলের পুনরাবৃত্তি যাতে আগামীতে না হয় সেইজন্য ওই কাজে ছোট মেশিন ব্যবহার করা হবে। এদিন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বৈঠক হয়েছে। সমস্যাও মিটে গিয়েছে। আগামী সোমবার থেকে ফের রাস্তার কাজ শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি।

এই বিষয়ে জেলা পিডাব্লিউডি ইঞ্জিনিয়ার অনিন্দ্য রায় বলেন, ‘শতাধিক বছরের প্রাচীন এই রাস্তাটি সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। বাধা এলে কাজের গতি শ্লথ হয়ে যায়, যা একেবারেই কাম্য নয়।’