কোচবিহারে রাসমেলার বদলে এবার শিল্পমেলার সিদ্ধান্ত

302

কোচবিহার : রাসমেলা মাঠেও নয়, রাসমেলা নামেও নয়। তবে রাস উত্সব উপলক্ষ্যে কোচবিহারের দুই জায়গায় মেলা বসছে। সেখানে খাবারের দোকান থেকে শুরু করে কাপড়ের দোকান- সমস্ত ধরনের দোকানই থাকবে। তবে বিশেষ করে হস্তশিল্প এবং স্বনির্ভর গোষ্ঠীদের স্টল বেশি করে থাকছে। তাই রাসমেলা এবার শিল্পমেলা হয়ে যাচ্ছে। ৩০ নভেম্বর এই মেলার উদ্বোধন হবে। কোচবিহার ক্লাবের সামনে এবং টাউন হাইস্কুলের মাঠে মেলা বসছে। সবমিলিয়ে দুটি ভেনুতে প্রায় ১৩০টি স্টল বসছে। বৃহস্পতিবার কোচবিহার শহরের ল্যান্সডাউন হলে পুরসভা এবং প্রশাসনের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

কোচবিহার পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর চেয়ারম্যান ভূষণ সিং বলেন, বর্তমানে করোনা পরিস্থিতিতে আগের মতো মেলা করা সম্ভব নয়। তাই রাসমেলা হচ্ছে না। শহরের দুটো জায়গা বেছে নিয়ে সেখানে শিল্পমেলা করা হচ্ছে। সবমিলিয়ে প্রায় ১৩০টি দোকান বসবে। টাউন হাইস্কুলের মাঠে ৬০-৭০টি দোকান বসবে। বাকি দোকান কোচবিহার ক্লাবের মাঠে বসবে। স্বনির্ভর গোষ্ঠী এবং হস্তশিল্পীদের বিভিন্ন সামগ্রীর স্টল ও কিছু খাবার সহ অন্য সামগ্রীর দোকান থাকবে। জেলা শাসক পবন কাদিয়ান বলেন, শহরের দুটো ভেনুতে কিছু স্টল নিয়ে মেলা হবে। এজন্য সমস্ত দপ্তরের কী কী কাজ রয়েছে তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সমস্ত প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।  বৈঠকের পর দুটো ভেনু প্রশাসন এবং পুরসভা মিলে যৌথ পরিদর্শন হয়েছে।

- Advertisement -

উত্তর-পূর্ব ভারতের সব থেকে বড় উত্সব কোচবিহারের রাসমেলা। কোচবিহারের রাজপরিবারের কুলদেবতা মদনমোহনকে ঘিরেই রাসযাত্রা এবং রাসমেলা হয়ে থাকে। এবার রাসমেলার ২০৯তম বর্ষ ছিল। তবে করোনার জন্য মেলার আয়োজন করবে না কোচবিহার পুরসভা। মদনমোহন মন্দির প্রাঙ্গণে প্যান্ডেল তৈরি শুরু করা হয়েছে। রাসমেলা না হলেও মদনমোহন মন্দিরে রাসযাত্রা উৎসব, রাসচক্র ঘোরানো সবই আগের মতো হবে। মন্দিরের সামনে প্রতিবারের মতো ভক্তিমূলক বইয়ের দোকান কিংবা পুজোর সামগ্রীর দোকান বসবে। তবে তিন হাজারের উপরে দোকান বসিয়ে মেলার আয়োজন করছে না পুরসভা। পুরসভার যুক্তি, রাসমেলা মাঠে কোনও আয়োজন হলে অন্য ব্যবসায়ীরাও পসরা সাজিয়ে বসে পড়বেন। তাই রাসমেলা মাঠের বদলে অন্যত্র শিল্পমেলা করা হচ্ছে। রাসমেলা না হওয়ায় হতাশ ব্যবসায়ীরা। কারণ দেশ-বিদেশের বহু মানুষ প্রতিবছর এই মেলায় ব্যবসা করতে আসেন। ১০০ কোটি টাকার উপর ব্যবসা হয় ১৫ দিনের মেলায়। যা এবার আর হবে না।