আইপিএলে সিলমোহর, টি২০ বিশ্বকাপ নিয়ে ধীরে চল নীতি

অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : স্থগিত আইপিএলে স্বস্তি। কুড়ির বিশ্বকাপ আয়োজনে ধীরে চল নীতি। সঙ্গে ঘরোয়া ক্রিকেট ও ক্রিকেটারদের ক্ষতিপূরণ নিয়ে ধোঁয়াশা।

চুম্বকে এই হল ভারতীয় ক্রিকেট প্রশাসনে হালফিলের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর বিশেষ সাধারণ সভার নির্যাস। আড়াই হাজার কোটি টাকা ক্ষতির ধাক্কা সামলাতে মরিয়া হয়েছিল বিসিসিআই। বাকি থাকা ৩১ ম্যাচ ২০ দিনে করার সিদ্ধান্ত আগেই চূড়ান্ত হয়েছিল। আজ শুধু সরকারি ঘোষণা হল এসজিএমের মাধ্যমে। যেখানে বোর্ডের তরফে দেশে আইপিএল আয়োজনে করোনা কাঁটার বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে দেশে বর্ষার মরশুমের কথা তুলে ধরা হয়েছে।

- Advertisement -

আগামী সোমবার বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, সচিব জয় শা-রা দুবাই যাচ্ছেন ১ জুনের আইসিসি বৈঠকে যোগ দিতে। জানা গিয়েছে, আইসিসির বোর্ড মিটিংয়ে যোগ দেওয়ার পাশে ২০২০ সালের আইপিএল আয়োজনের আগে যেমন সেখানকার ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা করেছিলেন বিসিসিআই শীর্ষ কর্তারা, এবারও তেমন হবে। পাশাপাশি অক্টোবরে টি২০ বিশ্বকাপ আয়োজনে সময় চেয়ে নেওয়ার কথাও আজ জানিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। দেশের করোনা সংক্রমণের হার আগের তুলনায় কমেছে। এই যুক্তি তুলে ধরে ১ জুনের আইসিসি বৈঠকে বিশ্বকাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত আরও পিছনে ঠেলে দেবেন সৌরভরা।

এসজিএমে আজ বোর্ডের সহ সভাপতি রাজীব শুক্লা প্রশ্ন তুলেছিলেন, অক্টোবরের টি২০ বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বদলে নেওয়ার। সভাপতি সৌরভ জানান, অজিরা বিসিসিআইকে আগে এই প্রস্তাব দিয়েছিল। তখন বোর্ড সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে না করেছিল। এখন তাই এমনটা সম্ভব নয়। রাতের দিকে রাজীব শুক্লা উত্তরবঙ্গ সংবাদকে বলেন, আইপিএল দুবাইয়ে হচ্ছে। আর দেশে টি২০ বিশ্বকাপ আয়োজনে হাল ছাড়ছি না আমরা। দেশের করোনা সংক্রমণের হার কিছুটা কমেছে। আগামী এক মাসে পরিস্থিতি আরও নিয়ন্ত্রণে এলে অক্টোবরে বিশ্বকাপ হতেই পারে দেশে।

স্থগিত আইপিএলের পূর্ণাঙ্গ সূচি এখনও না হলেও আজ বিসিসিআই সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ইউএইতে আয়োজনের কথা ঘোষণা করেছে। কিন্তু বিদেশি ক্রিকেটারদের প্রতিযোগিতায় পাওয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে। এসজিএমেও এব্যাপারে প্রশ্ন তুলেছিলেন কয়েকজন সদস্য। জানা গিয়েছে, সভাপতি সৌরভ তাঁদের আশ্বস্ত করার পাশে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, কোনও ফ্র‌্যাঞ্চাইজি তাদের বিদেশি ক্রিকেটারদের না পেলে পরিবর্ত নেওয়ার সুযোগ পাবে। নাম না লেখার শর্তে কেকেআরের এক কর্তা রাতের দিকে বলেন, বোর্ডের ভাবনা ও উদ্যোগকে স্বাগত। কিন্তু বাস্তবে কাজটা সহজ নাও হতে পারে।

আইপিএল শুরু, টি২০ বিশ্বকাপ নিয়ে ধীরে চল নীতির কথা ঘোষণার পাশে ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারল না বিসিসিআই। শুধু তাই নয়, না হওয়া শেষ রনজি মরশুমে ক্রিকেটারদের ক্ষতিপূরণের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও আজ এসব নিয়ে আলোচনাই হল না। বৈঠকে হরিয়ানার তরফে এব্যাপারে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। কিন্তু সচিব জয় শা অ্যাজেন্ডায় নেই বলে পাশ কাটিয়ে গিয়েছেন বলে খবর। জানা গিয়েছে, আজ এসজিএমের পর সৌরভ-জয়দের মনের অন্দরে টি২০ বিশ্বকাপ বাঁচানো নিয়ে নানা পরিকল্পনা ঘুরছে। সোমবার দুবাইয়ে পৌঁছে আইসিসি বৈঠকে যোগ দেওয়ার আগে বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট কর্তাদের পাশে চাইছেন বিসিসিআই কর্তারা।

মহারাজকীয় নিল নকশায় বাস্তবে এমনটা সম্ভব হলে ১ জুন আইসিসি বৈঠকের পর দেশে ফিরে ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে নতুন করে ভাববেন তাঁরা।