করোনা সংক্রামিতদের পাশে দাঁড়াতে ওয়েবসাইট তৈরি করলেন ঈপ্সিতা

77

বালুরঘাট: করোনা সংক্রামিত ব্যক্তি ও তার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে অনন্য নজির গড়লেন বালুরঘাটের এক কলেজ পড়ুয়া। অ্যাম্বুলেন্স থেকে শুরু করে অক্সিজেন সহ যাবতীয় গুরুত্বপূর্ন তথ্য এক জায়গায় তুলে ধরতে ওয়েবসাইট তৈরি করেছে চকভবানী এলাকার বাসিন্দা ঈপ্সিতা ভৌমিক। কোথায় অক্সিজেন মিলবে কোথায়ই বা বিনামূল্যে খাবার পাওয়া যাচ্ছে, আবার কোথায় যোগাযোগ করলে স্বেচ্ছাসেবীরা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবেন সেই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য থাকছে ইপ্সিতার তৈরি ওয়েবসাইটে।

অনেকেই করোনা আক্রান্ত হওয়ার ফলে নানা রকম সমস্যায় পড়ছেন। ওষুধপত্র থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার কেউ নেই। সংক্রামিতদের চিকিৎসা করাতে একরকম হিমশিম খাচ্ছেন রোগীর পরিজনরা। সেই কারণে গত ২ মে থেকে ঈপ্সিতা ওয়েবসাইট তৈরি করার কাজ শুরু করেন। পাঁচ দিনের মধ্যেই এই ওয়েবসাইট তৈরির কাজ প্রায় শেষ হয়ে যায়। প্রত্যেকদিন যেখান থেকে যেমন তথ্য মিলছে তা তৎক্ষনাৎ ওয়েবসাইটে আপলোড করা হচ্ছে। থাকছে ফোন নম্বরও। রাজ্যে ব্যক্তিগত উদ্যোগে এধরনের প্রচেষ্টা এই প্রথম বলেই দাবি। ঈপ্সিতার তৈরি ওয়েবসাইটে রাজ্যের বিভিন্ন জেলার তথ্য রয়েছে। যেখানে সাধারন মানুষ যে কেউ চাইলেই এক ক্লিকে বিভিন্ন ধরনের তথ্য সহজেই পেতে পারেন। ঈপ্সিতা বর্তমানে দিল্লির একটি কলেজে ইংরেজি নিয়ে স্নাতক স্তরে তৃতীয় বর্ষে পড়ছেন। তবে, করোনার জেরে বাড়িতে থেকেই কোনও ভাবে সমাজকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার একটা চিন্তা কাজ করছিল। সেই চিন্তা থেকেই ওয়েবসাইটটি তৈরি করে ফেলেন ইপ্সিতা। আর এই কাজে সাহায্য করেন তাঁর বাবা, মা ও বন্ধুরাও।

- Advertisement -

ঈপ্সিতা ভৌমিক বলেন, ‘প্রথমে ওয়েবসাইট নয়, একটি ডেটাবেস তৈরি করেছিলাম। সেই ডেটাবেস সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব ছিল না। সেই জায়গা থেকেই এই ওয়েবসাইট তৈরি করার কথা মাথায় আসে। আমাদের জেলার বিভিন্ন পুরসভা, প্রশাসনিক ভবন বা স্বাস্থ্য দপ্তর সমস্ত কিছুর যোগাযোগের নম্বর সেখানে দিয়েছি।‘

ঈপ্সিতার মা সীমা ভৌমিক জানান, আমি একজন স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে করোনা পরিস্থিতি চাক্ষুষ করতে পারছি। এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে আমার মেয়ের এমন উদ্যোগে গর্ববোধ হচ্ছে। ঈপ্সিতার বাবা শিক্ষক প্রলয় ভৌমিক জানান, মেয়েকে সর্বতোভাবে সমর্থন ও সাহায্য করেছি। তাঁর এই প্রয়াস সফল হয়েছে। ওয়েবসাইট থেকে প্রচুর মানুষ সাহায্য পাচ্ছেন।