টাকা নেওয়ার অভিযোগে পদচ্যুত ইসলামাবাদের তৃণমূল নেতা, ভাঙা হল কমিটি

597

রাঙ্গালিবাজনা: কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ ওঠায় দলীয় পদ হারাতে হল তৃণমূল নেতাকে। ভাঙা হল কমিটিও। আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট-বীরপাড়া ব্লকের ইসলামাবাদ গ্রামের ঘটনা। ইসলামাবাদে সরকারি প্রকল্পে গরিবদের জন্য ঘর নির্মাণ বাবদ বরাদ্দ টাকা থেকে দলের নেতা-কর্মীদের কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ প্রকাশ্যে এসেছে। আর তারপরই অভিযুক্ত মৌজা সভাপতিকে পদচ্যুত করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। পাশাপাশি ইসলামাবাদ গ্রামে দলের ৪২ সদস্যের মৌজা কমিটিও ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

১৫ জানুয়ারি ওই এলাকায় তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে গরিব উপভোক্তার কাছে কাটমানি বাবদ টাকা নেওয়ার অভিযোগে উত্তেজনা ছড়ায়। চাপে পড়ে সেদিনই কাটমানির টাকা ফেরত দিতে বাধ্য হন দলের মৌজা সভাপতি খাদেমুল ইসলাম। দলীয় সূত্রের খবর, কাটমানি নেওয়ার মতো স্পর্শকাতর অভিযোগ প্রকাশ্যে আসার পর দলের খয়েরবাড়ি অঞ্চল কমিটির সভাপতি জবাইদুল ইসলাম বিষয়টি দলের মাদারিহাট-বীরপাড়া ব্লক কমিটি ও আলিপুরদুয়ার জেলা কমিটিকে জানান। ব্লক ও জেলা কমিটি অভিযোগের তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার দায়িত্ব দেয় জেলা সম্পাদক রশিদুল আলমকে। তদন্ত শেষে জেলা কমিটির সিদ্ধান্তের কথা সোমবার রাতে দলীয় কর্মীদের জানিয়ে দেন অঞ্চল কমিটির সভাপতি জবাইদুল ইসলাম। মঙ্গলবার তিনি বলেন, ‘জেলা নেতৃত্বের নির্দেশে ওই কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়েছে। নয়া সভাপতি ও সহ সভাপতি মনোনীত হয়েছেন যথাক্রমে রহিম বক্স ও সুরেন্দ্রনাথ রায়। তাঁদের দ্রুত নয়া পূর্ণাঙ্গ মৌজা কমিটি গঠনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

- Advertisement -

তবে পদচ্যুত মৌজা সভাপতি খাদেমুল ইসলাম বলেন, ’আমি কারও কাছে টাকা নিইনি। বরং কর্মীদের নেওয়া টাকা গরিব উপভোক্তাকে ফেরত দিয়েছি।’ অঞ্চল সভাপতি জবাইদুল ইসলামও বলেন, ’দলের কয়েকজন কর্মী এধরনের কাজ করেছেন। মৌজা সভাপতি ওই টাকা উপভোক্তাকে ফেরত দিতে গেলে স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনাটি ক্যামেরাবন্দী করেন। তবে এই ধরনের কার্যকলাপ বরদাস্ত করার প্রশ্নই নেই। ভবিষ্যতেও এসব ব্যাপারে দল কঠিন অবস্থান নেবে।’