চার বছরেও বদল হয়নি আজ্জুরিদের

উত্তর আয়ারল্যান্ড – ০

ইতালি – ০

- Advertisement -

বেলফাস্ট : চার বছর আগে প্লে-অফের বাধা কাটিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপে যেতে পারেনি ইতালি।

চার বছর পর কাতার বিশ্বকাপে যাওয়ার জন্য সেই প্লে-অফের অপেক্ষা করতে হবে আজ্জুরিদের। সোমবার রাতে নিজেরা উত্তর আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করায় এবং সুইজারল্যান্ড বুলগেরিয়াকে ৪-০ গোলে হারানোয় গ্রুপ শীর্ষ থেকে নেমে আসে ইতালি। যদিও ইতালির কোচ রবার্তো মানচিনির দাবি, কাতারে ট্রফি হাতে নেবেন তাঁর ছাত্ররাই।

এমনিতে গ্রুপ বিন্যাস অনুয়াযী ইউরোপের বড় দলগুলিকে সাধারণত একটিই কঠিন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে খেলতে হয়। এবার সরাসরি মূলপর্বে যাওয়ার ক্ষেত্রে ইতালির প্রধান প্রতিপক্ষ ছিল সুইসরা। কিন্তু তাদের বিরুদ্ধে দুই পর্বেই পেনাল্টি নষ্ট করে দলকে ডুবিয়েছেন জর্জিনহো। এমনকি দিন তিনেক আগে ঘরের মাঠে শেষ মিনিটে সুইজারল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনি পেনাল্টি কাজে লাগাতে পারলে এদিন ড্র করলেও সমস্যা হত না ইতালির। জর্জিনহোর ব্যর্থতাই ব্যবধান গড়ে দিল বলে মনে করছেন মানচিনি, আমাদের বহু আগেই মূলপর্ব নিশ্চিত করা উচিৎ ছিল। সেটা না করতে পারটা লজ্জার। আমাদের আত্মসমালোচনা প্রযোজন। গুরুত্বপূর্ণ দুটি ম্যাচে পেনাল্টি নষ্ট করেছি। আমাদের জেতার সুযোগ ছিল।

শেষ দুই ইউরো জয়ী দেশই আগামী বছর বিশ্বকাপে যাওয়ার জন্য প্লে-অফ খেলবে। ২০১৬-র চ্যাম্পিয়ন পর্তুগালের কোচ ফের্নান্দো স্যান্টোস দাবি করেছিলেন তাঁর দল কাতারের টিকিট পাবেই। এবারের চ্যাম্পিয়ন ইতালির কোচ মানচিনি অবশ্য একধাঁপ এগিয়ে নিজেদের সম্ভাব্য চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই তুলে ধরলেন। তাঁর কথায়, আমরা মার্চে বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার ছাড়পত্র আদায় করব। এবং কাতারে সম্ভবত ট্রফিটাও জিতব। আমি আত্মবিশ্বাসী। আইরিশদের বিরুদ্ধে নামার আগেই প্লে-অফ খেলার সম্ভাবনা নিয়ে মুখ খুলেছিলেন মানচিনি। তিনি বলেন, প্লে-অফের মাধ্যমে বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার মধ্যে লজ্জার কিছু নেই। বিশ্বকাপে যাওয়াই আসল কথা। আমরা কীভাবে যাচ্ছি সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়।