বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় আসা শুধু কিছু সময়ের অপেক্ষা: জে পি নাড্ডা

152

বর্ধমান: ‘দিদির সর্বদা রাগ দেখানো দেখেই প্রমাণ হয়ে গেছে তৃণমূল সাফ হয়ে গিয়ছে। ভারতীয় জনতা পার্টির এই রাজ্যে ক্ষমতায় আসা সময়ের অপেক্ষা মাত্র। বুধবার পূর্ব বর্ধমানের একাধিক বিধানসভা এলাকায় নির্বাচনি জনসভায় যোগ দিয়ে এমনটাই দাবি করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। তাঁর এই ঘোষণার পরেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে বর্ধমানের রাজনৈতিক মহলে। যদিও তৃণমূলের রাজ্যের মুখপাত্র দেবু টুডু বলেন, ’বিজেপি সব নেতাই এখন বড় বড় জ্যোতিষী বনে গিয়েছেন। ভোটের রেজাল্ট বের হওয়ার পর ওদের সব জ্যোতিষী বিচার ফেল হয়ে যাবে।’

এদিন পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোটের নতুনহাট ও জামালপুরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনি জনসভায় যোগ দেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে আগাগোড়াই তৃণমূল সরকার ও তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করেন জে পি নাড্ডা। তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন সম্প্রতি দিদির নির্বাচনি প্রচারের উপর ২৪ ঘণ্টার জন্য প্রতিবন্ধকতা জারি করে। কারন দিদি একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের মানুষদের একজোট হতে বলেছিলেন। এর থেকেই বোঝা যাচ্ছে ওঁরা সমাজকে বিভাজনের রাজনীতি করছে। কিন্তু কেন্দ্রের মোদিজীর সরকার সরকারই ‘সবকা সাথ-সবকা বিকাশ-সবকা বিশ্বাস নীতিতে অবিচল থেকে কাজ করে যাচ্ছে। অন্যদিকে, এদিনের জনসভায় মুখ্যমন্ত্রীর মানসিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী সিআরপিএফ জওয়ানদের ঘিরে ফেলার কথা বলছেন। এমন মুখ্যমন্ত্রীকে কি আপনারা আর ক্ষমতায় রাখবেন?

- Advertisement -

সবশেষে রাজ্যের শাসকদল ও মুখ্যমন্ত্রীকে নিশানা করে জে পি নাড্ডা আরও একধাপ সুর চড়িয়ে বলেন, ’মমতা দিদির একনায়কতন্ত্র, তোলাবাজি, তোষণ ও ভ্রষ্টাচারের বিরুদ্ধে বিজেপি লড়ছে। কারণ বিজেপি চায় সোনার বাংলা গড়তে। বিগত দশ বছর ধরে বাংলায় মমতা দিদির কুশাসন চলছে। তাই এবার ব্যালট বা ইভিএমের মাধ্যমে দিদিকে বিদায় দিতে হবে। গণতান্ত্রিক পথেই ২ মে’র পর বাংলায় ডবল ইঞ্জিন সরকার তৈরি হবে।’