ভুবনেশ্বর, ১০ জুনঃ ভক্তদের ওপর সেবায়েতদের জোর চলবে না। ভক্তদের কাছ থেকে জোর করে অনুদান বা প্রণামী নেওয়া চলবে না। এমনই নির্দেশ দিল পুরীর জগন্নাথ মন্দির কর্তৃপক্ষ। মন্দিরে পুজো দিতে যাওয়া ভক্তদের ওপর করা জোরজুলুমের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ওড়িশা সরকারকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

বিচারপতি আদর্শ কুমার গোয়েল ও বিচারপতি অশোক ভূষণের অবকাশকালীন বেঞ্চ বলেছে, পুরীর জগন্নাথ মন্দিরে পুণ্যার্থীরা যাতে কোনোরকম সমস্যা ছাড়া পুজো দিতে পারেন এবং তাঁদের দেওয়া অর্থের অপব্যবহার না হয়, তা দেখা প্রাথমিক কর্তব্য। এর জন্য জম্মু ও কাশ্মীরের বৈষ্ণো দেবী মন্দির, গুজরাটের সোমনাথ মন্দির, পঞ্জাবের স্বর্ণমন্দির, অন্ধ্রপ্রদেশের তিরুপতি মন্দির ও কর্ণাটকের ধর্মস্থল মন্দিরের পরিচালন ব্যবস্থা দেকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জগন্নাথ মন্দির কর্তৃপক্ষকে।

শীর্ষ আদালতের এই নির্দেশের পরেই এক বিজ্ঞপ্তি জারি করে মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সেবকরা ভক্তদের কাছ থেকে কোনোরকম টাকা নিতে পারবেন না। ভক্তদেরও প্রণামী বা অনুদান মন্দিরের প্রধান দফতর, শাখা বা তথ্য কেন্দ্রে জমা দিয়ে রশিদ নেওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে।

সেবায়েতদের একাংশ অবশ্য সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশে অখুশি। তাঁদের দাবি, ভক্তদের দেওয়া প্রণামী বা অনুদানের অর্থই বেশিরভাগ সেবায়েতের একমাত্র আয়ের উৎস। সেটা বন্ধ হয়ে গেলে তাঁরা সমস্যায় পড়তে পারেন।

ওড়িশার আইনমন্ত্রী প্রতাপ জেনা বলেছেন, ‘রাজ্য সরকার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ খতিয়ে দেখবে। আমরা এই নির্দেশ মেনে নেব।’