মন্ত্রী জাকির হোসেনের ওপর হামলার নেপথ্যে এনামুলের সহযোগীদের হাত, সন্দেহ

124

কলকাতা: বুধবার রাতে নিমতিতা স্টেশনে রাজ্যের মন্ত্রী জাকির হোসেনের উপর যে ভয়াবহ হামলা চালানো হয় তার তদন্তে জোর কদমে নেমেছে রাজ্য পুলিশের সিআইডি শাখা, কাউন্টার ইনসারজেন্সি ফোর্স ও ফরেনসিক বিভাগের অফিসাররা। জানা গেছে, জাকির হোসেন গোরু পাচারের কারবারিদের তীব্র বিরোধী। ২০১৭ সালে গোরু পাচারে অভিযুক্ত এনামুলের দলবল জাকির হোসেন ও তার সঙ্গীদের উপর হামলা চালিয়েছিল। ওই ঘটনার পরপরই জাকির হোসেন স্থানীয় থানায় এনামুল ও তার দলের কয়েকজন পাণ্ডার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করে পুলিশকে জানিয়েছিলেন যে তিনি প্রাণঘাতী হামলার আশঙ্কা করছেন। জঙ্গিপুর থানায় দায়ের করা মন্ত্রীর অভিযোগটি জিডি এন্ট্রি নাম্বার ৭৫৬ /১৭ তে নথিভূক্ত করা হয়েছিল। ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৪১/ ১৮৬/ ৩০৭/ ৫০৬ ও ১২০ বি ধারা মতে এনামুল হক, হুমায়ুন কবির,  মেহেদী হাসান সহ আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। কিন্তু কোনও কারণে পুলিশ সেই মামলাটির তদন্ত ঠিকমতো করেনি বলে অভিযোগ। এদিন হাসপাতালে হাজির থাকা জাকির হোসেনের সমর্থকদের সূত্রে জানা যায় যে,  সেসময় এনামুল ছিল মুর্শিদাবাদ জেলার শাসকদলের একজন প্রভাবশালী নেতা। এনামুল ও তাদের সঙ্গীদের চাপে তদন্ত নিয়ে কোনও অগ্রগতি হয়নি। এছাড়া ২০১৫ সালে নির্বাচনে জিতে জাকির হোসেন রাজ্যের মন্ত্রী হলেও এলাকার রাজনৈতিক মহলে তার দাপট সেই অর্থে ছিল না। বর্তমানে গোরু পাচারের তদন্তে সিবিআই আসরে নামার পর থেকেই আপাতত পাচারের কাজ বন্ধ। জাকির হোসেনের সহচরদের ধারণা এনামুলের স্থানীয় এজেন্ট যারা গোরু পাচারের কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিল তারাই হামলার ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে।