বৈষ্ণবনগরে জার ভর্তি বল বোমা উদ্ধার

189

বৈষ্ণবনগর: বোমা উদ্ধারকে ঘিরে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে চাপানউতোর শুরু হয়েছে। তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপি আসন্ন নির্বাচনে এলাকা উত্তপ্ত করার জন্যই বোমা-গুলি মজুদ করেছিল। কারণ এই এলাকাগুলিতে বিজেপির ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। ঘটনাকে ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে বৈষ্ণবনগর বিধানসভার আকন্দবাড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের পাকা কোর্ট এলাকায়। বুধবার দুপুরে গোপন সূত্রে পুলিশ জানতে পারে পাকা কোর্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছনে জঙ্গলের মধ্যে প্রচুর বোমা রয়েছে। গোলাপগঞ্জ থানার ওসি শ্যামসুন্দর সাহার নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী ওই এলাকা ঘিরে ফেলে। পরে কালিয়াচক থানার আইসি আশিস দাসও সেখানে উপস্থিত হন। এলাকায় তল্লাশি চালিয়ে পুলিশ জানতে পারে ওই এলাকায় একটি জার ভর্তি বোমা রয়েছে। বম্ব স্কোয়াট সেখানে উপস্থিত হয়ে বমা গুলি নিষ্ক্রিয় করে। বোমা গুলি ফাটানোর সময় দমকল বাহিনী ও হাসপাতাল থেকে একটি চিকিৎসকের টিম সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

বম্ব স্কোয়াটের সদস্যরা জানিয়েছেন, প্লাস্টিকের বোমা ছিল। একটি জারে ১৮টি বোমা উদ্ধার হয়। একটি গর্তের মধ্যে বোমা গুলিকে একত্রিত করে রাখা হয়। তারপর বিদ্যুতের শক দিয়ে বোমা গুলি নিষ্ক্রিয় করা হয়। দমকল বাহিনীর আধিকারিক ধরণী কান্ত পাল বলেন, ‘বোমা গুলি নিষ্ক্রিয় করার সময় প্রচণ্ড শব্দে কেঁপে ওঠে গোটা এলাকা। প্লাস্টিকের বোমা হলেও খুব শক্তিশালী বোমা ছিল বলেই মনে করা হচ্ছে।

- Advertisement -

কালিয়াচক থানার আইসি আশিস দাস বলেন, কে বা কারা বোমা গুলি রেখেছিল জানা যায়। স্কুলের পেছনে ঝোপের মধ্যে বোমা গুলি রাখা হয়েছিল। তবে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে নির্বাচনে এলাকা উত্তপ্ত করার জন্যই এই বোমা করি মজুদ হয়েছিল। পাশাপাশি আকন্দবাড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান নিয়ে ঝামেলা চলছে। ফলে দুষ্কৃতীরা বোমা-গুলি মজুদ করছে মূলত এলাকায় উত্তপ্ত করার জন্যই। ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

বৈষ্ণবনগরের তৃণমূল ব্লক সভাপতি দুর্গেশ চন্দ্র সরকার বলেন, ‘আকুন্দ বাড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা তে বিজেপির শক্তি বেশি রয়েছে। বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই  বোমা-গুলি মজুদ করেছিল। বোমাবাজি করে আসন্ন নির্বাচনে বুথ দখল করে বিজেপির ভোট করার জন্যই এই বোমা-গুলি মজুদ করা হয়েছিল। দুর্গেশ বাবুর দাবি  অবিলম্বে ওই দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

বিজেপির বিধায়ক স্বাধীন কুমার সরকার বলেন, ‘আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি তৃণমূলের দুষ্কৃতীরাই এই বোমা-গুলি মজুদ করেছিল। কারণ আমাদের বিজেপিতে কোনও দুষ্কৃতীকে প্রশ্রয় দেওয়া হয় না। নির্বাচনী এলাকায় উত্তপ্ত করে ভোট করার জন্যই তৃণমূল একাজ করেছে।’