তরাই-ডুয়ার্সের একগুচ্ছ আসনে প্রার্থী দেবে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা: সুপ্রিয় ভট্টাচার্য

107

মালবাজার: বুধবার মাল শহরের উদীচী কমিউনিটি হলে ডুয়ার্সের আদিবাসী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করলেন ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার মহাসচিব তথা দলের মুখপাত্র সুপ্রিয় ভট্টাচার্য। বৈঠকের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সুপ্রিয় বাবু বলেন উত্তরবঙ্গের ডুয়ার্স তরাই এলাকার সঙ্গে ঝাড়খণ্ডের নাড়ির সম্পর্ক আছে। এখানকার চা শ্রমিকসহ বাসিন্দারা নানাভাবেই বঞ্চিত হচ্ছেন। আমরা ডুয়ার্স তরাইয়ের পাশাপাশি জঙ্গলমহলে ও বিধানসভা নির্বাচনে বিভিন্ন আসনে প্রার্থী দেব। তপশিলি উপজাতি, জাতি সংরক্ষিত আসনের পাশাপাশি সাধারণ প্রার্থীদের আসনেও দলীয় প্রার্থী দাঁড় করানো হবে। এদিকে, বিধানসভা ভোটের পূর্বের ডুয়ার্সে সুপ্রিয় ভট্টাচার্যের মতো ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার গুরুত্বপূর্ণ নেতার উপস্থিতিতে দিকে নজর রেখেছে বিভিন্ন মহলই।

মাল শহরের উদীচী কমিউনিটি হলে বুধবার বিকালে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নেতা সুপ্রিয় ভট্টাচার্য এলাকার বেশ কিছু আদিবাসী নেতৃত্বদের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকের পর সুপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, ‘ডুয়ার্স তরাইয়ের আদিবাসীরা এখনও পর্যন্ত বঞ্চিত হয়ে আছেন। চা শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি নেই। এখন দ্রব্যমূল্যের চড়া হার। সেখানে কম মজুরিতে শ্রমিকদের দিন যাপন করতে হচ্ছে। আদিবাসীদের আজও জমির অধিকার দেওয়া হয়নি। চা শ্রমিকদের দাবি নিয়ে কেন্দ্র রাজ্য সরকার একে অপরের কোর্টে বল ঠেলছে। আদিবাসীদের অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। আদিবাসীদের ভাষা, সংস্কৃতি রক্ষার ক্ষেত্রেও গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না।’

- Advertisement -

সুপ্রিয়বাবু বলেন, ‘বিজেপি মানুষের জমির অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। কৃষক বিরোধী আইন প্রণয়ন করছে। কোনরূপ রাখঢাক না করেই সুপ্রিয় বাবু বলেন আমরা এবার ডুয়ার্স, তরাই এবং জঙ্গলমহল এলাকার বেশ কয়েকটি বিধানসভা কেন্দ্রে প্রার্থী দেব। আমরা সাংগঠনিকভাবে আলোচনা করছি। এই সমস্ত এলাকাতেও আমাদের সংগঠন শক্তিশালী ভাবেই আছে। চা শ্রমিকদের সংগঠনও আছে। এই এলাকা আমাদের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ।’

এক প্রশ্নের জবাবে সুপ্রিয়বাবু বলেন, ‘বিগত বিধানসভা নির্বাচনগুলিতে আমাদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা হয়েছি।ল আমরা এবার সার্বিক বিষয়েই লক্ষ্য রাখছি।’ আপনারা কি কোন পক্ষের সঙ্গে জোট করে লড়াই করবেন? এই প্রশ্নের জবাবে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা নেতা বলেন, ‘এখনই সুনিশ্চিত ভাবে এসম্পর্কে কোনো কথা বলা যাচ্ছে না। আমরা সর্বস্তরে আলোচনা করেই সিদ্ধান্ত নেব।’ এদিন বৈঠকে সুপ্রিয় ভট্টাচার্যের সঙ্গে বৈঠকে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা ডুয়ার্স এলাকার নেতা পিটার মিনজের পাশাপাশি ডুয়ার্সের আদিবাসী নেতা গণেশ চিক বড়াইক, রামচন্দ্র প্রজা বাবলু মাঝি, চন্দন লোহরা প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

পিটার মিনজ বলেন, ‘আমরা পূর্ব বিধানসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছিলাম। এবারও নির্বাচনকেন্দ্রিক আলোচনা হল।‘ ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা নেতৃত্বের দাবি এবার নির্বাচনে দারুন ফল হবে। জেতার জন্যই তাঁরা লড়াই করছেন। ডুয়ার্সের আদিবাসী নেতা চন্দন লোহরা, বাবলু মাঝি অবশ্য এখনই বৈঠক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কিছু বলেননি। তাঁরা বলেন, ‘আমরা সর্বস্তরেই আলোচনা করছি। আলোচনার মাধ্যমেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।‘

এদিন উদীচী কমিউনিটি হলে বৈঠকের পর সুপ্রিয়বাবু শিলিগুড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন। এদিকে ডুয়ার্সের রাজনৈতিক মহল ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা নেতৃত্বদের বৈঠকের দিকে নজর রেখেছে। বিগত নির্বাচনগুলোতেও বিভিন্ন সময় ডুয়ার্সের বিভিন্ন আসনে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চার প্রার্থী ছিল। ডুয়ার্সের অনেক আসনই তপশিলি উপজাতি অধ্যুষিত। পাশাপাশি তপশিলি জাতি অধ্যুষিত এলাকাও আছে। এসমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা প্রার্থী দিলে পরিস্থিতি কি দাঁড়ায় তা নিয়ে বিশ্লেষণ চলছে। মার্জিনাল আসনগুলিতে ঝাড়খণ্ড মুক্তি মোর্চা প্রার্থীরা বড় ফ্যাক্টর হয়ে উঠতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন।