নয়াদিল্লি, ৬ জানুয়ারিঃ জেএনইউ-এর ঘটনায় লেফটেন্যান্ট গভর্নর অনিল বাইজলের সঙ্গে কথা বললেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা। ঘটনায় দিল্লি পুলিশের তরফে এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লি পুলিশের ডিসিপি দেবেন্দ্র আর্য জানান, সোশ্যাল মিডিয়া এবং সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে অপরাধীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চলছে। যদিও এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি।

এদিকে জেএনইউ-এর ঘটনায় বিভিন্ন জায়গায় চলছে প্রতিবাদ। মুম্বইয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পড়ুয়ারা গেটওয়ে অফ ইন্ডিয়ার সামনে প্রতিবাদে সামিল হন। বিক্ষোভ দেখান কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। ঘটনার প্রতিবাদে আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা একটি মোমবাতি মিছিল বের করেন। পাশাপাশি পুনের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন ইন্সটিটিউট এবং হায়দরাবাদেও বিক্ষোভ দেখান পড়ুয়ারা।

প্রসঙ্গত, রবিবার দিল্লির জেএনইউ ক্যাম্পাসে ঢুকে বহিরাগত দুষ্কৃতীরা তাণ্ডব চালায়। বাদ যায়নি গার্লস হস্টেলও। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, গতকাল সন্ধ্যা ৬টা নাগাদ আচমকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দুষ্কৃতীরা ঢুকে পড়ে। মুখে কাপড় বেঁধে, লাঠি, পাথর, হাতে একের পর এক হস্টেলে হামলা চালায় তারা। ঘটনায় আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। তাঁদের হাসপাতালে ভরতি করা হয়। দুষ্কৃতীদের আক্রমণে গুরুতর আহত হন ঐশী ঘোষ। তাঁকে এইমসে ভরতি করা হয়। ঘটনায় এসএফআই নেত্রী জানান, মুখোশধারী গুণ্ডাবাহিনী আমার ওপর নৃশংসভাবে হামলা চালায়। জেএনইউ ছাত্র সংসদের অভিযোগ, এই হামলার পিছনে আরএসএসের ছাত্র সংগঠন এবিভিপি-র হাত রয়েছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে এবিভিপি। এই ঘটনায় দেশজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠছে।