মেসিকে ধরে রাখার প্রতিশ্রুতিতে ভরসা বার্সার

বার্সেলোনা : একজন ক্লাব লেজেন্ড জাভিকে কোচ করে আনার দাবি জানিয়েছিলেন। আরেকজন বলেছিলেন, ক্ষমতায় এসে সই করাবেন এমবাপ্পে, হালান্ডদের। কিন্তু বার্সেলোনার সদস্যরা ভরসা করলেন লিওনেল মেসিকে ক্লাবে রেখে দেওয়ার প্রতিশ্রুতিকে।

রবিবারের নির্বাচনে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ভিক্টর ফন্ট ও টনি ফ্রেইক্সাকে বিপুল ভোটে হারিয়ে দ্বিতীয় দফার জন্য বার্সার সভাপতি হলেন জোয়ান লাপোর্তে। মোট ৫৫ হাজার ৬১১ ভোটের প্রায় ৫৪.৩ শতাংশ এসেছে তাঁর পক্ষে, যা ফন্ট (৩০ শতাংশ) বা টনির (৯ শতাংশ) থেকে অনেকটাই বেশি। এর আগে ২০০৩-১০ পর্যন্ত এই পদে ছিলেন তিনি। নির্বাচিত হওয়ার পর মূলত তিনটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হবেন লাপোর্তে। মেসিকে ধরে রাখার ব্যবস্থা করা, আগের মতো শক্তিশালী দল গড়া এবং ক্লাবের আর্থিক সমস্যা কাটিয়ে ওঠার পথ খুঁজতে হবে তাঁকে।

- Advertisement -

লাপোর্তে নির্বাচনের আগে দাবি জানিয়েছিলেন, মেসিকে ধরে রাখতে হলে তাঁকে জেতাতে হবে। এই প্রতিশ্রুতিতে ভরসা করেছেন ৩০ হাজার ১৮৪ জন ভোটার। জাভিকে কোচ করার প্রতিশ্রুতি দেওয়া ফন্ট পেয়েছেন ১৬ হাজার ৬৭৯ জনের সমর্থন। আর ক্লাবের প্রায় দেউলিয়া দশার মধ্যে এমবাপ্পে-হালান্ডকে আনার দাবি যে শুভঙ্করের ফাঁকি, তা প্রায় সকলেই বুঝেছিলেন। তাই টনির কপালে জুটেছে মাত্র ৪ হাজার ৭৬৯টি ভোট।

জয় নিয়ে লাপোর্তের মত, এটাই ক্লাবের ইতিহাসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন। মেসিকে ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ প্রসঙ্গে বললেন, ভোট দিতে আসা থেকেই স্পষ্ট, মেসির কাছে ক্লাবের গুরুত্ব রয়েছে। কুড়ি বছর আগে এই দিনেই ও প্রথমবার ক্লাবের জুনিয়ার দলের হয়ে নেমেছিল। বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ ফুটবলার বার্সাকে ভালোবাসে। এর থেকে বোঝা যায় যে ও বার্সাতেই থাকছে। আর আমরাও সেটাই চাই।

২০০৩ সালে লাপোর্তে ক্লাব সভাপতি হওয়ার পরেই বার্সার স্বর্ণযুগ শুরু হয়। দুটো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, এক মরশুমে ছয় খেতাব, রোনাল্ডিনহো-মেসি-জাভি-ইনিয়েস্তার মতো ফুটবলারদের উপস্থিতি, পেপ গুয়ার্দিওলার অপ্রতিরোধ্য দল- সবই দেখেছে বিশ্ববাসী। ফের একবার সেই দিন ফেরানোই চ্যালেঞ্জ লাপোর্তের।