জ্ঞাণেশ্বরী কাণ্ডে জীবিতকে ‘মৃত’ দাবি করে চাকরি, ক্ষতিপূরণ, ফাঁস হয়ে গেল অপরাধ

315
সংগৃহীত

কলকাতা: রেলকে বোকা বানিয়ে চাকরি ও ক্ষতিপূরণের টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠল কলকাতার এক বাসিন্দার বিরুদ্ধে। ‘মৃত’ ব্যক্তির বেঁচে রয়েছেন বলেই জানা গিয়েছে। প্রতারণার অভিযোগে ‘মৃত’ ব্যক্তি ও তাঁর বাবাকে শুক্রবার রাতে আটক করেছে সিবিআই। পাশাপাশি তাঁদের লাগাতার জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। যদিও ‘মৃত’ ব্যক্তি নিজের পরিচয় অস্বীকার করলেও তাঁর বাবা সমস্ত অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছেন।

প্রায় ১১ বছর আগে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল মুম্বইগামী জ্ঞানেশ্বরী এক্সপ্রেস। সেই মর্মান্তিক ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল আনুমানিক ১৫০ জনের। মৃতের তালিকায় ছিলেন কলকাতার জোড়াবাগানের বাসিন্দা অমৃতাভ চৌধুরী। রেলকে সেই কথা জানিয়ে এবং সমস্ত প্রমাণ দিয়ে অমৃতাভকে মৃত ঘোষণা করে তাঁর পরিবার। সেই অনুযায়ী মৃতের বোনকে রেলের তরফে একটি চাকরি এবং ক্ষতিপূরণ বাবদ চার লক্ষ টাকা দেওয়া হয়। তবে, তিনি মারা যাননি এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্যই উঠে এসেছে এতদিন পর। এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করে ওই ব্যক্তির বোনকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

- Advertisement -

সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, দুর্ঘটনাগ্রস্ত ওই ট্রেনের যাত্রী ছিলেন অমৃতাভ চৌধুরী। ঘটনার পর তাঁকে মৃত বলে দাবি করে তাঁর পরিবার। এরপরই ভুয়ো ডিএনএ রিপোর্টের মাধ্যমে অমৃতাভকে রেলের কাছে মৃত প্রমাণিত করা হয়। পরবর্তীতে নিয়ম অনুযায়ী রেলের তরফে ক্ষতিপূরণের টাকা দাবি করেন অমৃতাভর বাবা মিহির চৌধুরী এবং মা অর্চনা চৌধুরী। পাশাপাশি অমৃতাভর বিবাহিত বোন মহুয়া পাঠক রেলে চাকরি পান। তবে, এতবছর পর রেলের সন্দেহ হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে পুনরায় তদন্ত শুরু করে রেলের ভিজিল্যান্স ডিপার্টমেন্ট৷ এরপরই পরিষ্কার হয় তিনি বেঁচে আছেন এবং শুরু হয় তদন্ত।