সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে গাভাসকারকে জবাব বেয়ারস্টোর

পুনে : ভারতীয় বোলারদের ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়েছেন।

ঝোড়ো সেঞ্চুরিতে জল ঢেলেছেন ৩৩৬ রান নিয়ে ভারতের সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে। ম্যাচ শেষে জনি বেয়ারস্টোর ঝাঁঝ থেকে রেহাই পেলেন না সুনীল গাভাসকারও।

- Advertisement -

টেস্টের প্রতি বেয়ারস্টোর আগ্রহ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন গাভাসকার। টেস্ট সিরিজে ইংরেজ তারকার আয়ারাম-গয়ারাম পারফরম্যান্সের সমালোচনায় মুখর হন। ম্যাচ জেতানো ১২৪ রানের ইনিংসের পর বেয়ারস্টোর পালটা তোপ, তাঁর ফোন সবসময় খোলা রয়েছে। গাভাসকার চাইলেই ফোন করতে পারেন। তখনই তিনি টেস্ট নিয়ে নিজের ইচ্ছের কথা জানাবেন।

এক প্রশ্নের জবাবে বেয়ারস্টো বলেন, প্রথমত, উনি যা বলেছেন, তা আমার কানেই আসেনি। আর আমার সঙ্গে ওঁর (সুনীল গাভাসকার) কোনও কথাবার্তা বা যোগাযোগ হয়নি। এরপরও এরকম মন্তব্য কীভাবে করলেন, তা জানতে ইচ্ছে করছে। আমাকে যখন খুশি ফোন করতে পারেন। ওনাকে স্বাগত। তখনই আমি জানাব, টেস্টের প্রতি আমার আগ্রহ রয়েছে কি না। কিংবা টেস্ট খেলা উপভোগ করি কি না। আমার ফোন সবসময় খোলা। যখন ইচ্ছে ফোন বা মেসেজ করতে পারেন।

ভারতের ৩৩৬/৬ স্কোরের জবাবে ৩৯ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটের বড়ো জয় ইংল্যান্ডের। বেয়ারস্টোর পাশাপাশি বেন স্টোকসের ৯৯। প্রথম দুই উইকেটে সেঞ্চুরি জুটি গড়ে ব্যবধান গড়ে দেন বেয়ারস্টোই। তুরীয় মেজাজে ব্যাটিং বিস্ফোরণ প্রসঙ্গে বেয়ারস্টোর যুক্তি, আদিল রশিদ ১০-১১ নম্বরে খেলতে নামে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ওর গোটা দশেক সেঞ্চুরি রয়েছে। বিশ্বের খুব কম দলের কাছে এমন প্লেয়ার রয়েছে, যে ১০-১১ নম্বরে নামে। পাওয়ার হিটারের তালিকা ধরলে মইন আলি, কুরান ভাইয়েরাও চলে আসবে। এরকম শক্তিশালী ও অ্যাগ্রেসিভ ব্যাটিং লাইনআপ আত্মবিশ্বাস জোগায়, মত বেয়ারস্টোর।