জলপাইগুড়ি : শীতের সময় সংরক্ষিত বনাঞ্চলে দুষ্কৃতীদের আগুন লাগানো রুখতে স্থানীয় বাসিন্দাদের অস্থায়ী ওয়াচার হিসাবে নিযুক্ত করতে চলে রাজ্য বন দপ্তর। সারা রাজ্যে মোট ১ হাজার ফরেস্ট ওয়াচার বা বন গোয়েন্দা নিয়োগ করা হচ্ছে। উত্তরবঙ্গে ৪১৪ জন জঙ্গল গোয়েন্দা নিযুক্ত হবে। জঙ্গলে ফরেস্ট ফায়ার প্রিভেনশন অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট স্কিম (এফপিএম) খাতে মোট বরাদ্দ ১ কোটি ৫৯ লক্ষ টাকার মধ্যে উত্তরবঙ্গের জঙ্গলে গোয়েন্দা নিযুক্ত করতে বরাদ্দ করা হয়েছে ৬০ লক্ষ টাকা। জঙ্গলের মাটির রাস্তা সংষ্কার এব্ং গাড়ির তেলের খরচ এই বরাদ্দ অর্থে ধরা হয়েছে।

বন দপ্তর সুত্রে জানা গিয়েছে, দক্ষিণবঙ্গের জঙ্গলগুলিতে  বিভিন্ন জনজাতি বন্যপ্রানী শিকারের উদ্দেশ্যে জঙ্গলের  ভিতর শুকনো পাতা বা গাছে আগুন ধরিযে দেয। তাছাড়া জঙ্গলের কিছু অংশে পড়ে থাকা শুকনো পাতায আগুন ধরিযে জঙ্গল লাগোয়া এলাকায় জমি উর্বর করে থাকে কিছু মানুষ।অনেক সময চোরাশিকারিরা শিকার করার জন্য জঙ্গলে আগুন ধরিযে বন্যপ্রাণীর পালানোর রাস্তা বন্ধ করে দেয।এতে শিকার করতে সুবিধা হয।

বন্যপ্রাণী বিভাগের উত্তরবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত মুখ্য বনপাল উজ্জ্বল ঘোষ বলেন, ‘বর্ষার সময বাদে যেকোনো সময় অসাধু ব্যক্তিরা জঙ্গলের ভিতর কিছু অংশে আগুন ধরিযে থাকে।এইসমস্ত বেআইনি কাজ আমরা হতে দেব না। যে কারণে ফরেস্ট ওয়াচার বা জঙ্গল গোয়েন্দাদের অস্থায়ীভাবে নিয়োগ করা হচ্ছে।

পুলিশে পৃথকভাবে গোয়েন্দারা নজরদারি করার জন্য সোর্সদের কাজে লাগান।একইভাবে বন দপ্তরও এবার স্থানীয চৌখস ছেলেমেয়েদের জঙ্গলে নজরদারির কাজে লাগাবে।তবে এই পদ আপাতত চলতি আর্থিক বছরের জন্য।’

উত্তরবঙ্গে বক্সা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ বিভাগে ১০০ জন, বন্যপ্রাণ বিভাগের নর্দান সার্কলে ১২০ জন, বনবিভাগের নর্দান সার্কলে ১১৪ জন এবং হিল বিভাগে ৮০ জন ওয়াচার নিযুক্ত করা হচ্ছে বলে বনদপ্তর সুত্রে জানা গিয়েছে।এই ওয়াচারদের কাজের জন্য চলতি আর্থিক বছরে বক্সায় ১৪ লক্ষ টাকা, বন্যপ্রাণীর নর্দান সার্কলকে ১৬ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা, বনবিভাগের নর্দান সার্কলকে ১৫ লক্ষ ৬৬ হাজার এবং হিল বিভাগকে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যে জঙ্গলে আগুন ধরানোর কাজ আটকাতে, জঙ্গল সংরক্ষণ, গাড়ি, ওয়াচার সব মিলিযে মোট ১ কোটি ৫৯ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়েছে।

অবশ্য এই অর্থ খুবই কম বলে অভিযোগ করেছেন জলপাইগুড়ি সাযে্স অ্যান্ড নেচার ক্লাবের সম্পাদক রাজা রাউত।তিনি বলেন, ‘এই ধরনের কাজে আরও অর্থ বরাদ্দ করে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নেওয়া উচিত। ওয়াচারদের চুক্তিভিত্তিতে নিয়োগ করা হবে।’

বন দপ্তর এখনও এই নিয়োগ সম্পর্কে স্পষ্টভাবে কিছু জানায়নি।এদের নিয়োগ সম্ভবত গোপনই রাখা হবে। তবে কাজের জন্য এদের সাম্মানিক দেওয় হবে।

ছবি : সুকনার জঙ্গলে আগুন ধরানোর পর।

তথ্য ও ছবি : পূর্ণেন্দু সরকার