শুভদীপ শর্মা, লাটাগুড়ি: তিস্তার ভাঙনে নিশ্চিহ্ন হতে বসেছে বৈকুণ্ঠপুর ডিভিশনের ভৈষাডোবার জঙ্গল। কয়েক বছরে জঙ্গলের প্রায় ত্রিশ হাজারের বেশি গাছ ও কয়েকশো একর জমি তলিয়ে গিয়েছে তিস্তায়। তবু নদীভাঙনের বিরাম নেই। অবিলম্বে ভাঙন রোধ করে জঙ্গল রক্ষার দাবি উঠেছে। বন দপ্তরের তরফে এই বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

মাল ব্লকের চ্যাংমারি গ্রাম পঞ্চায়েতের আপালচাঁদ রেঞ্জের মালহাটি বিটে রয়েছে ভৈষাডোবার জঙ্গল। কয়েক বছর ধরে তিস্তা নদী তার গতিপথ কিছুটা পরিবর্তন করে এই জঙ্গলের পাশ দিয়ে বইতে শুরু করেছে। যার জেরে ব্যাপক ভাঙন শুরু হয়েছে এই জঙ্গলে। জঙ্গলের প্রায় ত্রিশ হাজারের ওপর গাছ ও কয়েকশো একর জমি তলিয়ে গিলে নিয়েছে তিস্তায়। বহু বছরের পুরোনো শাল, সেগুন সহ মূল্যবান বহু গাছ দিনের পর দিন এই ভাঙনের কবলে পড়ে তলিয়ে যাচ্ছে নদীগর্ভে। গভীর এই জঙ্গলে এক সময়ে হাতিরা এসে আস্তানা জমাত। তবে বর্তমানে হাতিরা আর এই জঙ্গলমুখো হয় না। হাতি না এলেও বিভিন্ন প্রজাতির পাখি, ময়ূর রয়েছে এই জঙ্গলে। প্রাকৃতিক শোভায় ভরপুর এই জঙ্গলে কয়েক বছর ধরে য়ে ভাঙন চলছে, তাতে আগামীদিনে এই জঙ্গলটির কোনো অস্তিত্ব থাকবে কি না তা নিয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে স্থানীয়দের মধ্যে। পাশাপাশি জঙ্গলটি রক্ষার দাবিও উঠছে।  ময়নাগুড়ি রোড পরিবেশপ্রেমী সংগঠনের সম্পাদক নন্দু রায় অভিযোগ করেন, বিভিন্ন দিকে রাস্তা ও উন্নয়নমূলক কাজের জন্য অবাধে গাছ কাটা চলছে। অপরদিকে, সংরক্ষিত স্থানে যেখানে জঙ্গল রয়েছে, সেখানে ভাঙনে হাজার হাজার গাছ তলিয়ে যাচ্ছে। বন দপ্তর কিংবা প্রশাসনের এই ভাঙন রোধে অবিলম্বে ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রযোজন। বন দপ্তরের আপালচাঁদ রেঞ্জ সূত্রে খবর, বিষয়টি তাদের নজরে রয়েছে। কীভাবে জঙ্গলটিকে রক্ষা করা য়ায় সেই চেষ্টা চলছে।