ফাইল চিত্র

নিউজ ব্যুরো, ১৩ জুন : ৪৮ ঘণ্টা কেটে যাওয়ার পরেও কর্মবিরতি চালিয়ে যাচ্ছেন জুনিয়র ডাক্তাররা। আর তার জেরে বৃহস্পতিবারও রাজ্যজুড়ে বিপর্যস্ত চিকিত্সা পরিসেবা। এদিনও এনআরএস, কলকাতা মেডিকেল কলেজ, এসএসকেএম সহ অন্য মেডিকেল কলেজে ধরনা দিচ্ছেন জুনিয়ার ডাক্তাররা। একই চিত্র জেলার মেডিকেল কলেজগুলিতেও। হাওড়া জেলা হাসপাতাল, হুগলি ইমামবাড়া হাসপাতাল, বাঁকুড়া মেডিকেল কলেজের মতো জেলার বড়ো হাসপাতালগুলির বেশিরভাগ জায়গাতেই বন্ধ আউটডোর পরিসেবা। উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজেও সকাল থেকে চলছে ধরনা। শুধুমাত্র ইমার্জেন্সি ছাড়া রোগীদের ভিতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। তবে রোগীর আত্মীয়দের চাপে পড়ে বৃহস্পতিবার সকালে এসএসকেএমে-র আউটডোর পরিসেবা সাময়িকভাবে শুরু করা হয়েছে। চিকিত্সা না পেয়ে ক্ষোভ বাড়ছে রোগীর আত্মীয় পরিজনদের মধ্য়ে।

বুধবার স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে বিবৃতি দিয়ে বিক্ষোভকারীদের প্রতিবাদ-ধর্না তুলে নিতে বলা হয়েছিল। ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ‘মুখ্যমন্ত্রী নিজে গোটা ব্যাপারটায় নজর রাখছেন। খতিয়ে দেখছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রকের আধিকারিকরাও। প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই নেওয়া হবে। এ বার যেন ইন্টার্ন এবং জুনিয়র ডাক্তাররা ধর্না তুলে নেন। কারণ এই ধর্নার আর প্রয়োজন নেই।’ এর পালটা প্রেস বিবৃতি জারি করেন জুনিয়র ডাক্তাররা। তাঁরা বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ এবং প্রশাসন তাঁদের ধর্নায় এবং তাঁদের দাবিতে গুরুত্ব দিচ্ছেন না বলেই এমনটা হচ্ছে। মাত্র ৫ জনকে গোটা ঘটনায় গ্রেফতার করা হয়েছে। যা তাণ্ডবকারীদের সংখ্যার মাত্র ১০ শতাংশ।’ যতক্ষণ তাঁদের দাবি মানা না হচ্ছে, আন্দোলন চলবে বলে তাঁরা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন।