তদন্ত প্রায় শেষের দিকে, খুব শীঘ্রই চার্জশিট পেশ করা হবে: পুলিশ সুপার

150

বৈষ্ণবনগর: বাবা, মা বোন এবং ঠাকুমাকে খুনের পর তথ্য প্রমাণ লোপাটের উদ্দেশ্যে কেমিক্যাল সহযোগে মৃতদেহে মাটিতে পুতে রাখা হয়েছিল। ইতিমধ্যে হত্যাকাণ্ডের মূল নায়ক আসিফের বাড়ি থেকে কেমিক্যাল ভর্তি জারকিন উদ্ধার করেছে পুলিশ। সেইসঙ্গে উদ্ধার হয়েছে বেশকিছু বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিও। সেসব যন্ত্রপাতি তার বন্ধু সাবীর আলীর বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছে। তারমধ্যে কম্পিউটারের কিবোর্ড সহ বেশ কিছু যন্ত্রপাতি রয়েছে। ফলে হত্যাকাণ্ডকে ঘিরে দিনের পর দিন রহস্য বাড়ছে। আরও জানা গিয়েছে, কেমিক্যাল ব্যবহার করে দেহগুলিকে কীভাবে সম্পূর্ণভাবে লোপাট করা যায় সেবিষয় নিয়ে নাকি আসিফ বেশ কিছুদিন পড়াশোনাও করেছিল। মাত্র ১৯ বছর বয়সি এই যুবক তদন্তে বারংবার নাকি পুলিশকে ঘোল খাইয়ে দিয়েছে।

ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তে মঙ্গলবার বিকেলে পুরাতন ১৬ মাইল হত্যা কাণ্ডের পুনর্নির্মাণ করা হয়। মালদা জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজুরিয়া, অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার গ্রামীণ আনিস সরকার, ডিএসপি হেডকোয়ার্টার প্রশান্ত দেবনাথের উপস্থিততে খুনের ঘটনার পুনর্নির্মাণ করা হয়। জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজুরিয়া বলেন, ‘ঘটনার পুনর্নির্মাণ করা হয়েছে। তদন্ত প্রায় শেষের দিকে। খুব শীঘ্রই খুনের মামলার চার্জশিট পেশ করা হবে।’

- Advertisement -