কালিয়াগঞ্জ, ১৯ নভেম্বরঃ কালিয়াগঞ্জ বিধানসভার উপ নির্বাচনের দিন এগিয়ে আসার সঙ্গে ত্রিমুখী প্রচারের লড়াই জমে উঠল। এই আসন ধড়ে রাখার চ্যালেঞ্জ বাম-কংগ্রেস জোটের কাছে। অন্যদিকে শাসক তৃনমূলের সামনে চ্যালেঞ্জ কালিয়াগঞ্জ বিধানসভার আসনে প্রথম জয়ের স্বাদ পাবার। পঞ্চায়েত ও লোকসভার সফলতায় উজ্জীবিত বিজেপির সামনে চ্যালেঞ্জ কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা আসন দখল করে একুশে বাংলার ক্ষমতা দখলের বার্তা জোড়ালো করার।
প্রয়াত জননেতা প্রিয়রঞ্জন দাসমুন্সীর মাতৃভূমি কালিয়াগঞ্জে বিধানসভা আসনের এই উপ নির্বাচনের প্রচারে তিন প্রধান প্রতিপক্ষ সর্বশক্তি লাগিয়েছে। ‘হাম কিসিসে কম নেহি’ প্রমান দিতে তিন প্রার্থীর প্রচারে প্রতিদিন  থাকছে প্রথম শ্রেনীর নেতৃত্ব। কালিয়াগঞ্জে মঙ্গলবার সকাল থেকে ভোট প্রচার ময়দানে ছিলেন তৃনমূল, বিজেপি, বাম ও কংগ্রেসের পরিচিত মুখ। বিজেপি প্রার্থী কমল সরকারের হয়ে এদিন কালিয়াগঞ্জ বিধানসভার গ্রামাঞ্চলে মোট ১০টি পাড়ায় ভোট প্রচারে অংশ নেয় কৈলাস বিজয়বর্গী ও মুকুল রায়। তাদের সঙ্গে ছিল বিজেপি জেলা সভাপতি নির্মল দাম এবং বিপ্লব মিত্র। অন্যদিকে তৃনমূল প্রার্থী তপন দেবসিংহের হয়ে প্রচারে নামে মন্ত্রী  রাজীব বন্দোপাধ্যায় ও বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল। এদিন শেষ বিকেলে বরুনা ও সন্ধ্যায় ভান্ডার পঞ্চায়েত এলাকায় দুটি প্রচারসভা করেন তৃনমুলের মন্ত্রী ও বিধায়ক। মঙ্গলবার সকালে কংগ্রেস প্রার্থী ধীতশ্রী রায়ের সমর্থনে প্রচার হয় বুথ ভিত্তিক। এদিন কংগ্রেস প্রার্থীর হয়ে প্রচারে আসেন দলের জাতীয় নেতা বি.পি সিং, বিধায়ক শংকর মালাকার, প্রদেশ মহিলা কংগ্রেস সভানেত্রী সুব্রতা দত্ত, সেবাদলের প্রদেশ সভাপতি বিশ্বজিত সরকার। এদিন বিকেল থেকে কালিয়াগঞ্জের গ্রাম ও শহরে একাধিক পথসভার ভোটের প্রচার করেন কংগ্রেসর এই নেতৃত্ব। বরুনার ঝাপোইলে কংগ্রেস প্রার্থীর সমর্থনে সভা করেন কুশমন্ডির আরএসপি বিধায়ক নর্মদা রায়।