জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলায় দূষিত হচ্ছে কালজানি

121

প্রণব সূত্রধর, আলিপুরদুয়ার : নদী নাকি ভ্যাট বোঝা মুশকিল। যে হারে আলিপুরদুয়ারের কালজানি নদীতে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলার প্রবণতা শুরু হয়েছে তাতে এই বিভ্রান্তি হওয়াটাই স্বাভাবিক। যেভাবে নদীতে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলা চলছে তাতে ব্যাপক দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এর জেরে বাসিন্দারা খুবই সমস্যায় পড়েছেন। পাশাপাশি এই প্রবণতা বজায় থাকলে ব্যাপক জল দূষণের আশঙ্কাও ছড়িয়েছে। অভিযোগ, নদীতে যখন-তখন শহর ও শহর সংলগ্ন এলাকার কুকুর, বিড়ালের মতো গৃহপালিত পশুর মৃতদেহ ফেলা হচ্ছে। পাশাপাশি দূরবর্তী এলাকা থেকেও জীবজন্তুর মৃতদেহ এখানে ভেসে আসে। শনিবার কালজানি সেতু সংলগ্ন নদীর জলে একসঙ্গে তিনটি গোরুর মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। অভিযোগ, রাতে এলাকায় নিয়ে এসে এখানে গোরুগুলির মৃতদেহ ফেলা হয়। এভাবে নদীতে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলার প্রবণতা বেড়ে চলায় স্থানীয় বাসিন্দাদের পাশাপাশি পরিবেশপ্রেমীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়েছে। পাশাপাশি আলিপুরদুয়ার পুরসভার বিরুদ্ধে উদাসীনতার অভিযোগ জোরালো হয়েছে। সমস্যা মেটাতে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি উঠেছে। আলিপুরদুয়ার পুরসভার এগজিকিউটিভ অফিসার কমলকৃষ্ণ মণ্ডল বলেন, লোকালয়ে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলে রাখার অভিযোগ পেলে সেগুলি লোকালয় থেকে দূরে নিয়ে গিয়ে মাটিতে গর্ত করে পুঁতে দেওয়া হয়। লোকালয় বা নদীতে যাতে জীবজন্তুর মৃতদেহ না ফেলা হয় সেজন্য বিভিন্ন সময়ে সংবাদমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সবাইকে সচেতন করা হয়। প্রয়োজনে মাইকে প্রচার করে সবাইকে সচেতন করা হবে।
কালজানি নদীর গা ঘেঁষে আলিপুরদুয়ার শহর গড়ে উঠেছে। শহর সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দারা তো বটেই, আলিপুরদুয়ার শহরের বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডের বাসিন্দা দৈনন্দিন কাজে আজও এই নদীর জল ব্যবহার করেন। কালজানিতে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলার প্রবণতা বেড়ে চলায় এই বাসিন্দারা সমস্যায় পড়েছেন। ব্যাপক দুর্গন্ধ তো ছড়াচ্ছেই, পাশাপাশি নদীর বাস্তুতন্ত্র বিঘ্নিত হতে পারে বলেও আশঙ্কা ছড়িয়েছে। এলাকার বাসিন্দা আশিসকুমার দে, নন্দ সাহানি প্রমুখ জানান, নদীতে জল কম থাকলে জীবজন্তুর মৃতদেহ নদীর চরে এসে আটকে থাকে। বেশ কয়েকদিন আটকে থাকার পর মৃতদেহ পচে গিয়ে ব্যাপক দুর্গন্ধ ছড়ানো শুরু করে। নদীসংলগ্ন এলাকার বাসিন্দাদের প্রাণ ওষ্ঠাগত হয়। প্রাণী চিকিৎসক সুব্রতেশ রায় বলেন, নদীর জলে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলা কোনওমতেই উচিত নয়। এতে জলে বিভিন্ন ব্যাকটিরিয়ার বাড়বাড়ন্ত হয়ে অন্যান্য প্রাণীর পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে। পরিবেশপ্রেমী শিলাদিত্য আচার্য বলেন, নদীতে জীবজন্তুর মৃতদেহ ফেলা আইনত দণ্ডনীয়। এতে নদীর জল দূষিত হয়। পাশাপাশি, নদীর বাস্তুতন্ত্রও বিঘ্নিত হতে পারে। নদীর তীরবর্তী বসবাসকারী সাধারণ মানুষের উপর এর প্রভাব পড়ে।