করোনা আতঙ্কে মৃতদেহ আনতে অস্বীকার, পৌঁছে গেলেন করিমুল

1222

ক্রান্তি, ৮ জুনঃ মেয়ের বাড়িতে ঘুরতে গিয়ে মা মারা গিয়েছেন। করোনা আতঙ্কে কোনও গাড়ি চালক মৃতদেহ আনতে রাজি হচ্ছিলেন না। বাধ্য হয়ে মৃতের পরিবার করিমুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। করিমুল সাহেব নিজের বাইক অ্যাম্বুলেন্সে করে মেয়ের বাড়ি থেকে বৃদ্ধার মৃতদেহ আনতে গেলেন। এলাকাবাসী তাঁর এই কাজকে কুর্নিশ জানিয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মাল ব্লকের রাজাডাঙ্গার বারঘরিয়া বাজারের বাসিন্দা জ্ঞানেশ্বরী রায় গত কয়েকদিন আগে ক্রান্তি উত্তর খালপাড়াতে তাঁর মেয়ের বাড়ি যান। হঠাৎ অসুস্থ হয়ে সোমবার সকালে তিনি মারা যান। বৃদ্ধার পরিবারের লোকেরা মৃতদেহ আনার জন্য অ্যাম্বুলেন্স কিংবা গাড়ির খোঁজ করছিলেন। এলাকায় করোনা আতঙ্ক তখনও বহাল। কোনও গাড়ি মৃতদেহ আনতে রাজি হয়নি। শেষ পর্যন্ত পরিবারের সদস্যরা বাইক অ্যাম্বুলেন্স পদ্মশ্রী করিমুল হকের দ্বারস্থ হন। করিমুল হক হতাশ করেননি। নিজের বাইক অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে উত্তর খালপাড়া থেকে বৃদ্ধার মৃতদেহ নিয়ে এসে পরিবারের হাতে তুলে দেন।

- Advertisement -

পদ্মশ্রী করিমুল হক জানিয়েছেন, মানুষের জন্যই মানুষ। করোনা আতঙ্কে মৃতদেহ আনতে কোনও গাড়ি না পাওয়ায় পরিবারের লোকেরা তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। সমাজের মানুষের জন্য কাজ করাতেই তিনি আনন্দ পান। তিনি বলেন, “আমি আমার কর্তব্য পূরণ করতে পেরে, আমি খুশি।” বৃদ্ধার ছেলে রঞ্জিত রায় জানান, করিমুল সাহেবের ঋণ শোধ করা সম্ভব নয়।