স্ট্যাচু অফ লির্বাটিকে পিছনে ফেলে পর্যটক টানছে স্ট্যাচু অফ ইউনিটি

2869

আহমেদাবাদ: স্ট্যাচু অফ ইউনিটি; ঐক্যের প্রতীক, যা করোনা আবহেও নজির গড়েছিল গোটা দেশে৷ নানা টানাপড়েনের মধ্যেও মোদি সরকারের এই পদক্ষেপ যেমন বাহবা কুড়িয়েছে, তেমনই সমালোচনার ঝড়ও সহ্য করতে হয়েছে। গুজরাতের কেভাদিয়ায় এই অভিনব মূর্তি ছাড়াও ডায়েট পার্ক, আরোগ্য ভ্যান, তাঁবুতে থাকার সুবিধা, সঙ্গে রিভার র‍্যাফটিংয়ের মতো অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টসের ব্যবস্থা থাকায় বিশ্বজোড়া পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় ঘোরার জায়গা হয়ে উঠেছে স্ট্যাচু অফ ইউনিটি৷ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও এই জায়গাটিকে ‘অবশ্য দ্রষ্টব্য স্থান’ বলে বর্ণনা করেছেন৷ সম্প্রতি নিউইয়র্কের স্ট্যাচু অফ লির্বাটির থেকেও জনপ্রিয় হয়ে ভারতের এই সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের এই স্ট্যাচু, ‘ঐক্যের প্রতীক’৷

গুজরাটের অতিরিক্ত মুখ্য সচিব রাজীব গুপ্ত বলেছেন, এই পুরো জায়গাটাই প্রথম থেকেই পরিবারের সঙ্গে বেড়াতে আসার জন্য সুন্দর একটা জায়গা হিসেবে প্রধানমন্ত্রী মোদি এটি তৈরি করাতে চেয়েছিলেন৷ এই গোটা শহরের মূল আকর্ষণের জায়গাই হচ্ছে এই স্ট্যাচু অফ ইউনিটি৷

- Advertisement -

প্রশাসনের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনাকালের আগে প্রতিদিন কমপক্ষে ১৩ হাজার পর্যটক এই স্ট্যাচু অফ ইউনিটি দেখতে আসতেন৷ লকডাউনের কারণে ৭ মাস বন্ধ ছিল এই স্ট্যাচুও৷ তারপর গত মাসেই ফের খোলে এই পর্যটন স্থলের দরজা৷ তাতেও বিন্দুমাত্র কমেনি এর আকর্ষণ৷ পরিসংখ্যান বলছে, গতমাসেও স্ট্যাচু অফ ইউনিটি দেখতে এসেছিলেন ১০ হাজারেরও বেশি মানুষ৷