কৃষকদের নিরাপত্তা দিচ্ছে কিষান গার্ড

409

মেখলিগঞ্জ : কাঁটাতারের বেড়ার ওপারে থাকা কৃষকদের জমিতে চাষের কাজের সময় চাষিদের নিরাপত্তা দিতে কিষান গার্ড মোতায়েন করছে বিএসএফ। মেখলিগঞ্জ ব্লকের বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী বিভিন্ন এলাকায় কৃষকদের নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য এই বাড়তি নজরদারি চালু করা হয়েছে বলে বিএসএফ সূত্রে খবর। কৃষকরা জমিতে চাষের কাজ করার সময় ওই বিএসএফ জওযানরা আশপাশে বন্দুক উঁচিয়ে পাহারা দিচ্ছেন। এতে খুশি সীমান্তপারের চাষিরা। তাঁদের কথায়, কাঁটাতার পেরিয়ে আন্তর্জাতিক সীমান্তের পাশে চাষের কাজ করার সময় এমনিতেই একটা আলাদা আতঙ্ক থাকে। তার উপর বাংলাদেশের দুষ্কৃতীদের ভয় রয়েছে। কারণ, ওপারের পাচারকারীরা মাঝেমধ্যেই জমিতে কাজ করা ভারতীয কৃষকদের হুমকি দেয়। এমনকি কয়েকবার হামলা বা ফসলের ক্ষতি করার চেষ্টাও হয়েছে। তাই বন্দুক নিয়ে বিএসএফ জওয়ানরা পাহারা দেওয়ায় কৃষকদের আতঙ্ক অনেকটাই কমেছে।

কয়েকমাস আগে কোচবিহার জেলার কুচলিবাড়ি সীমান্তে বেড়ার ওপারে জমিতে কাজ করার সময় এক চাষিকে তুলে নিযে গিয়েছিল একদল বাংলাদেশি। দিনভর আটকে রাখার পর শেষে দুই দেশের সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের পর ওই কৃষককে অনেক রাতে দেশে ফিরিযে আনা সম্ভব হয়। এই ঘটনার পর মেখলিগঞ্জের বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ায়। তাঁরা বেড়ার ওপারের জমিতে কাজ করার সময় নিরাপত্তা দাবি করেন।

- Advertisement -

মেখলিগঞ্জ ব্লকের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে নিরাপত্তার কারণে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়া হয়েছে। বহু ভারতীয কৃষকের জমি বেড়ার ওপারে বাংলাদেশের দিকে রয়েছে। ওই জমিতে চাষের কাজ করার জন্য কৃষকদের বেড়ার নির্দিষ্ট গেট দিয়ে ওপারে যেতে  ও কাজ সেরে সেই গেট দিয়ে ফিরতে হয়। গেট খোলা ও বন্ধ করার নির্দিষ্ট নিয়ম রয়েছে। কৃষকরা ওপারে যাওযার পর নিরাপত্তার কারণে গেট বন্ধ করে রাখা হয়। প্রয়োজনে গেট খুলে দেওয়া হয়। তাই বেড়ার ওপারে কৃষকদের কোনও সমস্যা হলে বিএসএফ কর্তৃপক্ষের কাছে সেই খবর পৌঁছাতে অনেকটা সময় লেগে যায়।

এই পরিস্থিতি নিয়ে বিএসএফের আধিকারিকদের কাছে একাধিকবার জানিয়েছিলেন সীমান্তের কৃষকরা। এরপরই মেখলিগঞ্জের ভোটবাড়ি ও চ্যাংরাবান্ধা সীমান্তে কাঁটাতারের ওপারে কৃষকদের সুরক্ষা দিতে কিষান গার্ড মোতায়েন করা হয়।

কৃষকদের নিরাপত্তার পাশাপাশি ফসলের খেত অনেকটা সুরক্ষিত থাকছে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন। কারণ মাঝেমধ্যে বাংলাদেশের কিছু দুষ্কৃতী ভারতীযদের জমির ফসল লুট করে। ফসলের জমিতে গোরু-ছাগল বেঁধে সেই ফসল নষ্ট করে দেয়। বিএসএফের নজরদারির কারণে এইসব সমস্যা অনেক কমেছে।  মোজাম্মেল হক নামে এক কৃষক বলেন, ‘জমিতে কাজ করার সময় পাশে বিএসএফ জওয়ানদের দেখে অনেক নিশ্চিন্ত লাগছে। এতে সীমান্তে ভালোভাবে চাষের কাজ করতে পারছি।’

চ্যাংরাবান্ধা, ভোটবাড়ি সীমান্তে কাঁটাতারের ওপারে চাষিদের নিরাপত্তার বিষয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন ১৪৮ নম্বর ব্যাটালিযন বিএএসএফের চ্যাংরাবান্ধা সীমান্তচৌকির কোম্পানি কমান্ডার রাজকুমার। তিনি বলেন, ‘সীমান্ত রক্ষার পাশাপাশি কৃষকদেরও যাতে বেড়ার ওপারে চাষের কাজের সময় নিরাপত্তা সংক্রান্ত কোনও সমস্যা না হয় সেই বিষয়ে আমরা নজর রাখছি।’

বিএসএফের উত্তরবঙ্গের ডিআইজি (জি) আর আর শর্মা বলেন, ‘সীমান্তের সর্বত্র বিএসএফের কড়া নজর রয়েছে। বেড়াবন্দি জমিতে চাষের কাজের সময় কৃষকদের যাতে কোনও সমস্যা না হয় সেদিকে লক্ষ রয়েছে।’

ছবি- সীমান্তে বিএসএফের পাহারা।

তথ্য ও ছবি- গৌতম সরকার