শিক্ষিকার বকেয়া বেতন না দেওয়ায় বিশ্বভারতীর রেজিস্ট্রারকে ভর্ৎসনা হাইকোর্টের

89

কলকাতা: আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও এক শিক্ষিকার বকেয়া বেতন না মেটানোয় বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে ভর্ৎসনা করল কলকাতা হাইকোর্ট। বৃহস্পতিবার ওই শিক্ষিকার বকেয়া বেতন অবিলম্বে মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশও দিয়েছে বিচারপতি সৌমেন সেন ও বিচারপতি সৌগত ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ। ডিভিশন বেঞ্চের বক্তব্য, রবীন্দ্রনাথের নামাঙ্কিত প্রতিষ্ঠান বলে তাঁর বিরুদ্ধে এখনও রুল ইস্যু করা হয়নি। আগামী ৫ মার্চ লিখিত হলফনামা দিয়ে আদালতের নির্দেশ অমান্য করার কারণ রেজিস্ট্রারকে জানাতে বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত ভবনের শিক্ষিকা শ্রুতি বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১৪ সালে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিশ্বভারতীতে নিযুক্ত হন। ২০১৮ সালে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হয়ে আসেন বিদ্যুৎকুমার চক্রবর্তী। কিছুদিন পরই তিনি ওই শিক্ষিকাকে জানান, প্রাপ্য বেতনের থেকে তাঁকে অনেক বেশি দেওয়া হয়েছে। তারজন্য ১৪ লক্ষ টাকা তাকে ফেরৎ দেওয়ার নির্দেশ দেন উপাচার্য। এর বিরুদ্ধে কলকাতা হাইকোর্টে বিচারপতি শহিদুল্লাহ মুন্সির সিঙ্গল বেঞ্চে মামলা করেন ওই শিক্ষিকা। আদালত নির্দেশে জানায়, বেতন ফেরৎ দেওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। কারণ বিশ্ববিদ্যালয় তাঁকে ওই বেতনেই নিযুক্ত করেছিল। এই নির্দেশের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় ডিভিশন বেঞ্চে আপিল করে। ইতিমধ্যে করোনা পরিস্থিতিতে ওই শিক্ষিকার বেতন আটকে দেওয়া হয় বলে ডিভিশন বেঞ্চে জানান তাঁর আইনজীবী। গত ডিসেম্বর মাসে বিচারপতি সৌমেন সেন ও বিচারপতি সৌগত ভট্টাচার্যের ডিভিশন বেঞ্চ শিক্ষিকার বকেয়া বেতন মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল। কিন্তু সেই নির্দেশ অমান্য করায় এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে আদালতে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট।

- Advertisement -