দেবীনগরের দুই অসহায় স্কুল পড়ুয়ার পাশে কৃষ্ণ কল্যাণী

236

দীপঙ্কর মিত্র, রায়গঞ্জ: উত্তরবঙ্গ সংবাদের খবরের জেরে দুই অসহায় পড়ুয়ার পাশে দাঁড়ালো রায়গঞ্জের এক ব্যবসায়ী। গত ৩ জানুযারি উত্তরবঙ্গ সংবাদে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী পৃথ্বী এবং ৭ জানুযারি একাদশ শ্রেণির ছাত্র মানব সাহার লড়াই সংগ্রাম প্রকাশিত হয়। খবর প্রকাশিত হতেই বৃহস্পতিবার সকালে দেবীনগর বাজারে গিয়ে দুই পড়ুয়ার হাতে পাঁচ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য তুলে দেন ব্যবসায়ী কৃষ্ণ কল্যাণীর প্রতিনিধি কৌশিক চক্রবর্তী।

দুই পড়ুয়া পৃথ্বী ও মানব নিজেদের খাবারের পাশাপাশি পড়াশোনার খরচ তোলার জন্য শাক, সবজি এবং ফল বিক্রি করে দেবীনগর বাজারে। উত্তরবঙ্গ সংবাদে এই খবর প্রকাশিত হয় ৩ জানুয়ারি এবং ৭ জানুয়ারি। সেই খবরের ভিত্তিতে এদিন সেই দুই পড়ুয়াকে আর্থিক সহায়তা করার জন্য পাশে এসে দাঁড়ায় রায়গঞ্জের ব্যবসায়ী কৃষ্ণ কল্যাণী।

- Advertisement -

দেবীনগর কৈলাশ চন্দ্র রাধারানী উচ্চ বিদ্যাপীঠের কলা বিভাগের ছাত্র পৃথ্বী। এবছর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে সে। পড়াশোনা  ঠিকঠাক করলেও আর্থিক দূরাবস্থার কারনে খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে। তাই শেষ পর্যন্ত শাক সবজি নিয়ে বাজারে বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয় পৃথ্বী। সেই মতো এদিন সকাল হলেই দেবীনগর বাজারে শাক সবজি বিক্রি করে। খাবারের সংস্থান করতে গিয়ে পরীক্ষার প্রস্তুতিতে বাধাপ্রাপ্ত হতে হচ্ছে তাকে।

অপরদিকে, মাড়াইকুড়া ইন্দ্রমোহন হাই স্কুলের একাদশ শ্রেণির ছাত্র মানব সাহা নিজের পড়াশোনার খরচ তুলতে বাজারে প্রতিদিন ফল বিক্রি করে। ভুগোলের শিক্ষক হওয়া তার স্বপ্ন। সেই স্বপ্নের পথে বাধা সেই আর্থিক বাধা। স্কুল বন্ধ থাকায় পুরোপুরিভাবে টিউশনের উপর নির্ভর সকলে। তাই টিউশনের টাকা তুলতে মানব ফল বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়। সে বাজারে কখনও কমলালেবু, আপেল বেঁচে টিউশন খরচ জোগাড় করতে থাকে। উত্তরবঙ্গ সংবাদে এই দুটো খবর প্রকাশিত হতেই অনেকেই দুই পড়ুয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

রায়গঞ্জের ব্যবসায়ী কৃষ্ণ কল্যাণী তাদের পাশে দাঁড়াতে এদিন পড়াশোনার খরচ বাবদ ১০ হাজার টাকা তুলে দেন। এদিন সকালে বাজারে গিয়ে দুই পড়ুয়ার হাতে ব্যবসায়ীর প্রতিনিধি হিসেবে কৌশিক চক্রবর্তী সাহায্য তুলে দেন দুই পড়ুয়ার হাতে। আর্থিক সহায়তা পেয়ে খুবই খুশি দুই পড়ুয়া। পৃথ্বী জানায়, আর্থিক সাহায্য পাওয়ায় অনেক টাই দুশ্চিন্তা দূর হল। আপাতত খাবারের চিন্তা দূরে সরিয়ে রেখে পড়াশোনায় মনোনিবেশ করব এবং আগামী দিনে মানুষের মতো মানুষ হয়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করব।

অন্যদিকে, মানবও জানায়, এদিন থেকে নতুন উদ্যমে পড়াশোনা করব।ভূগোল নিয়ে পড়াশোনা করে ভুগোল শিক্ষক হওয়ার জন্য আপ্রান চেষ্টা করব। উপস্থিত ছিলেন দেবীনগর বাজার সমিতির সম্পাদক দীপঙ্কর প্রামানিক। তিনি বলেন, ‘আমরা দেবীনগর বাজার ব্যবসায়ী সমিতিও আজ থেকে ওদের পাশে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ওদের জন্য ঝাড়ু ও জমার খরচ মাফ করা হয়েছে। এছাড়াও পাইকারী হারে মাল কিনতে যাতে অসুবিধা না হয়, সেই বিষয়টি পাইকারদের বলে দেওয়া হয়েছে।’ কৌশিকবাবু জানান, ‘আমরা চাই পৃথ্বী ও মানব যেন পড়াশোনা চালিয়ে যায়। তাদের পাশে আমরা থাকব। তিনি উত্তরবঙ্গ সংবাদকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।’