সারদা কাণ্ডে ফের কুণালকে তলব ইডির

55
ছবিঃ সংগৃহীত।

কলকাতা: নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, ততই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এজেন্সিগুলি বকেয়া তদন্তে গতি বাড়াচ্ছে। কয়লা ও গোরু পাচার কাণ্ডের তদন্তে নেমে ইতিমধ্যেই তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়ি অবধি পৌঁছে গিয়েছে তারা। দীর্ঘদিন থমকে থাকা সারদা কাণ্ডেও এবার গতি আনার কাজে নামল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি। মঙ্গলবার আবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র কুণাল ঘোষকে ডেকে পাঠিয়েছেন ইডি কর্তারা। সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সের দপ্তরে তাঁকে ১১টার সময়ে হাজির হতে বলা হয়েছে। কুণাল অবশ্য বলেছেন, আমি ২০১৩ সাল থেকেই তদন্তে সহযোগিতা করে আসছি। আবারও যাব। যা জানতে চাইবে, বলব।

২০১৩ সালে সারদা চিটফান্ড কাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে রাজ্য পুলিশের বিশেষ তদন্তকারী দল বা সিট কুণালকে গ্রেপ্তার করে। সেই সময়ে বিধাননগর কমিশনারেটের ডেপুটি পুলিশ কমিশনার অর্ণব ঘোষ বলেছিলেন, সারদাকর্তা সুদীপ্ত সেনের করা ষড়য়ন্ত্রের অংশীদার কুণালও। পরবর্তীকালে এই তদন্তের দায়িত্ব নেয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী এজেন্সি সিবিআই ও ইডি। কুণাল কারাবাসের সময়ে বহুবার কেন্দ্রীয় এজেন্সির জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হন। সোমবার কুণাল বলেন, ২০১৩ সাল থেকে আমি ওদের জিজ্ঞাসাবাদের জবাব দিচ্ছি। আমি এখন এই চিটফান্ড সম্পর্কিত বিষয়ে আমার ভমিকা নিয়ে যা জানি, তার চেয়ে অনেক বেশি জানে এজেন্সিগুলি। সব তথ্য ওদের হাতেই আছে। তবু আমি ডাকলেই যাব। এ নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই।

- Advertisement -

দীর্ঘ কারাবাস কাটিয়ে কুণাল জামিনে মুক্ত হওয়ার পর রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল তাঁকে রীতিমতো গুরুত্ব দিয়ে দলের মুখপাত্র করে। নির্বাচনের মুখে আবার তাঁকে জেরার জন্য ডেকে পাঠানোর বিষয়টি রাজনৈতিক দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, গত কয়েক সপ্তাহ ধরে তদন্ত চালিয়ে নতুন করে কিছু সূত্র পেয়েছে তারা। বিশেষ করে একটি অডিও ক্লিপ উদ্ধার হওযায় ইডিকর্তারা হঠাৎই উৎসাহিত হয়ে উঠেছেন। ওই ক্লিপ নিয়ে তাঁরা কুণালকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান।