লক্ষাধিক টাকা নয়ছয়ের অভিযোগ পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে

201

চ্যাংরাবান্ধা: ১৪ ও ১৫ আর্থিক বছরের কয়েক লক্ষ টাকা নয়ছয় করা হয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে সরাসরি এই অভিযোগ এনে বিডিও-এর কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেন দলেরই একাংশ। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে মেখলিগঞ্জ ব্লকের চ্যাংরাবান্ধা গ্রামপঞ্চায়েতে। উল্লেখ্য এই গ্রামপঞ্চায়েতে ক্ষমতায় রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের টিকিটে ভোটে লড়ে প্রধান হয়েছেন সবিতা বিশ্বাস।

প্রধানসহ কয়েকজন সরকারি অধিকারিকও এই নয়ছয়ের কাজে জড়িত বলে সরাসরি বিডিওকে লিখিত অভিযোগ জানালেন তৃণমূল কংগ্রেসের চ্যাংরাবান্ধা অঞ্চল কমিটি। জানা গিয়েছে সেই অভিযোগপত্রে তৃণমূলের আরও একাধিক পঞ্চায়েত সদস্য ও সদস্যাও স্বাক্ষর করেছেন। তৃণমূলের চ্যাংরাবান্ধা অঞ্চল কমিটির সভাপতি তথা পঞ্চায়েত সদস্য মনোরঞ্জন রায় শুক্রবার সন্ধ্যায় বলেন, ‘চ্যাংরাবান্ধা গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান এবং ওই দপ্তরের কয়েকজন সরকারি অধিকারিক ১৪ ও ১৫ আর্থিক বছরের কয়েক লক্ষ টাকা নয়ছয় করেছে। এটা কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।‘

- Advertisement -

অভিযোগ এদিন লিখিতভাবে ব্লকের বিডিওকেও জানানো হয়েছে। অভিযোগের সঠিক তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তির দাবিও জানানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের মেখলিগঞ্জ ব্লক সভাপতি উদয় রায়ও।

উদয়বাবুও বলেন, ‘চ্যাংরাবান্ধা গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান সরকারি অর্থ নয়ছয় করেছেন বলে শুনেছি। এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবির কথা প্রশাসনকেও জানানো হয়েছে।‘

তৃণমূলের একাংশের তরফে অভিযোগ করা হয়েছে, অনেকদিন থেকেই তারা আর্থিক নয়ছয়ের বিষয়টি আন্দাজ করতে পারছিলেন। ১৪ ও ১৫ আর্থিক বছরের অর্থ অধিকাংশকে না জানিয়েই খরচ করা হয়েছে। এনিয়ে তাদের কয়েকজন পঞ্চায়েত সদস্য ও সদস্যা হিসেব চাইলেও সেটা সঠিকভাবে দেওয়া হচ্ছিলনা বলে অভিযোগ করা হয়। এরপরেই এনিয়ে তাদের মনে সন্দেহ দানা বাঁধলে তাঁরা এদিন প্রশাসনকে লিখিত অভিযোগ জানান।

পাশাপাশি অভিযোগের কথা দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছেও পৌঁছে দেওয়া হয়েছে বলে তাঁরা জানিয়েছেন। তবে চ্যাংরাবান্ধা গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান সবিতা বিশ্বাসের বক্তব্য, ‘তাঁর বিরুদ্ধে অসত্য অভিযোগ এনে বদনাম রটানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। নথিপত্রই সঠিক কথা বলবে।‘

এবিষয়ে মেখলিগঞ্জ ব্লকের বিডিও সঙ্গে ইউডেন ভুটিয়ার সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাঁর মোবাইল বন্ধ থাকায় প্রতিক্রিয়া মেলেনি।