স্কুলের জমিতেও দখলদারদের থাবা, ক্ষোভ বাড়ছে নকশালবাড়িতে

153

নকশালবাড়ি : বাঁশের বেড়া, গাছ ইত্যাদি লাগিয়ে নকশালবাড়ির নন্দপ্রসাদ বালিকা বিদ্যালয়ের জমি ধীরে ধীরে দখল হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ। রাতারাতি ওই জমি দখল করে বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিরে দেওয়া হচ্ছে বলে স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযোগ করছেন। প্রশাসন ঘটনাটি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকলেও দখল রুখতে এখনও কোনও পদক্ষেপ করেনি বলে এলাকার বাসিন্দা বিশ্বজিৎ রায়, রাজু আইচ প্রমুখ অভিযোগ করেছেন। এভাবে চলতে থাকলে পুরো জমিটিই দখলদারদের হাতে চলে যাবে বলে তাঁদের আশঙ্কা। বিশ্বজিৎ রায় বলেন, বিদ্যালয়ের পাঁচ বিঘা জমির চারদিক বাঁশের বেড়া, গাছ লাগিয়ে অবাধে দখলদারি চলছে। বিষয়টি নিয়ে বহুবার স্কুল কর্তৃপক্ষ ও বিডিওকে জানানো হলেও কেউ কোনও ব্যবস্থা নেননি। নকশালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান অরুণ ঘোষ বলেন, দিন-দিন স্কুলের জমি দখল হয়ে যাওয়ায় মাঠ ছোট হয়ে যাচ্ছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ কোনও ব্যবস্থা না নিলে আমাদের কিছুই করার নেই। স্কুলের টিচার-ইন-চার্জ কল্পনা ত্রিপাঠী বলেন, জমি দখলের অভিযোগ পেয়েছি। তবে স্কুল বন্ধ থাকায় এখন কিছু বলা সম্ভব নয়। এদিন বহু চেষ্টা করেও নকশালবাড়ির বিডিও অরিন্দম মণ্ডলের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।
স্থানীয় সূত্রে খবর, সাতের দশকে নকশালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের কোটিয়াজোত এলাকার ভীমরাম মৌজায় এই স্কুলের জন্য প্রায় পাঁচ বিঘা জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছিল। তবে রাস্তা থেকে জমিটি অনেকটা ভিতরে বলে যোগাযোগের সমস্যার কথা ভেবে ১৯৮৫ সালে এলাকার বিডিও অফিসের সামনের জায়গায় স্কুলটিকে স্থানান্তর করা হয়। সেই থেকে কোটিয়াজোত এলাকার জমিটি ফাঁকা পড়ে রয়েছে। সেই সুযোগে কিছু দুষ্কৃতী জমিটি দখল করতে শুরু করে। দখল রুখতে এলাকার যুবকরা মাঠটি খেলার জন্য ব্যবহার করতে শুরু করেন বটে। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। খেলার মাঠে গাছ, বাঁশের বেড়া লাগিয়ে দখলদারি শুরু হয়। স্থানীয় যুবক রাজু আইচ বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নত হয়ে যাওয়ায় রাস্তার পাশের জমিগুলি ৭-৮ লক্ষ কাঠায় বিক্রি হচ্ছে। তাই বিদ্যালয়ের এই জমির ওপর ভূমি মাফিয়াদের কুনজর পড়েছে। দখল রুখতে বিডিওর কাছে অভিযোগ করা হলে এর আগে ওই জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল। তার পরেও কিন্তু অবাধে দখল চলছে। আরেক বাসিন্দা পাপন বর্ধন বলেন, নকশালবাড়িতে খেলাধুলার মাঠ নেই। তাই স্কুলের জমিতে এলাকার কচিকাঁচারা খেলাধুলা করে। কিন্তু আশপাশের কিছু অসাধু লোক মাঠে শৌচাগারের জল, আবর্জনা ফেলে রাখছে। জমিটি দখলের প্রতিবাদে এলাকার যুবকরা এদিন মাঠে দাঁড়িয়ে বিক্ষোভ দেখান। জমি দখল রুখতে প্রশাসন যাতে শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়, তার জন্য তাঁরা জোরালো দাবি জানান।