১১ ফ্রেব্রুয়ারি নবান্ন অভিযানের ডাক বাম ছাত্র যুব’র

108

কলকাতা: সকলের জন্য শিক্ষা, সকলের জন্য চাকরি সহ একাধিক দাবির ভিত্তিতে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি নবান্ন আভিযানের ডাক দিল ১০টি বামপন্থী ছাত্র যুব সংগঠন। সোমবার সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই-এর রাজ্য দপ্তরে আয়োজিত এক সাংবাদিক বৈঠকে ১০টি বামপন্থী ছাত্র যুব সংগঠনের তরফে একথা জানান ডিওয়াইএফআই-এর রাজ্য সম্পাদক সায়নদীপ মিত্র।

সেই সঙ্গে সায়নদীপ মিত্র এদিন জানান, গত দেড় মাস আগে থাকতে তাঁরা পুলিশের অনুমতির জন্য একাধিকবার চিঠি দিতে গেলেও পুলিশের তরফে সেই চিঠি গ্রহণ করা হচ্ছে না। তাই যে কোনওভাবেই তাঁদের নবান্ন অভিযান হবেই। শুধু তাই নয়, তাঁরা নবান্নে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে চার্জশিট ধরিয়ে আসবেন। আর এজন্য যদি কোনও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয় তার জন্য দায়ী থাকবে পুলিশ ও প্রশাসন। এমনকি, এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করার জন্য ছাত্র পরিষদ, যুব কংগ্রেস, আইসা ও ডিএসওকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ১১ ফেব্রুয়ারি বেলা ১২টায় তাঁরা কলেজ স্কোয়ারে জমায়েত করবে। তারপর সেখান থেকেই তাঁরা নবান্ন অভিযানে রওনা দেবেন। পুলিশ তাঁদের পথ আটকালে একাধিক পথ রয়েছে নবান্ন যাবার জন্য। তাই তাঁদের একজন কর্মী-সমর্থক হলেও যে কোনও রাস্তা দিয়ে নবান্নে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে তাঁদের পেশ করা চার্জশিট মুখ্যমন্ত্রী হাতে ধরিয়ে দেবেন বলেও তিনি জানান।

- Advertisement -

তাঁদের মতে, সর্বস্তরে ব্যর্থ এই তৃণমূল পরিচালিত রাজ্য সরকার। তাই বিজেপির রথযাত্রা অনুমতি দিয়ে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা সৃষ্টি করতে মত দিলেও পুলিশকে দিয়ে তাঁদের নবান্ন অভিযানের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। তাঁরা মনে করেন যে, সাম্প্রদায়িকতার আবহে এরাজ্যে নির্বাচন হোক তা তৃণমূল ও বিজেপি দু’দলই চায়।

এদিন তিনি অভিযোগ তোলেন যে, ঝুট আর লুঠ নিয়ে চলছে এরাজ্যের সরকার। তাই এদিন নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে মিথ্যা প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। আর এর জবাব আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যের ছাত্র যুব সম্প্রদায়ের মানুষ তাঁদের দেবেন বলেও তিনি জানান।