বাগান থেকে পাতা চুরির অভিযোগে আটক গাড়ি ঘিরে পথ অবরোধ স্থানীয়দের

132

জামালদহ: কোচবিহার জেলার রানিরহাটের কাউয়ারবাড়ি এলাকার একটি বন্ধ চা বাগানের পাতা তুলে বিক্রির জন্য বাইরে পাচার করা হচ্ছিল। দিনের পর দিন এই দুষ্কর্ম চলছিল। এমনই অভিযোগ পেয়ে সোমবার অতর্কিতে ওই বন্ধ চা বাগানে হানা দেয় মেখলিগঞ্জ থানার পুলিশ। পাতা বোঝাই একটি গাড়ি সমেত চার জনকে আটক করে পুলিশ। এনিয়ে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পুলিশি আটকের প্রতিবাদে পথ অবরোধে শামিল হন এলাকার বাসিন্দাদের একাংশ। বেশ কিছুক্ষণ অবরোধ চলার পরে পুলিশ আটক ব্যক্তিদের ছেড়ে দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

জানা গিয়েছে, মেখলিগঞ্জ ব্লকের কাউয়ারবাড়ি এলাকায় ৪২ একর জমি জুড়ে সীতারাম টি প্ল্যান্টেশন নামে একটি ক্ষুদ্র চা বাগান রয়েছে। সেখানে ১ জন সুপারভাইজার সহ ৪০ জন শ্রমিক নিযুক্ত রয়েছেন। কিন্তু গত ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাস নাগাদ বাগানে কর্মরত শ্রমিকদের সঙ্গে ঝামেলার জেরে মালিক পক্ষ বাগান ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়। মালিকপক্ষের অভিযোগ, তারপর থেকেই পুরো বাগানের দখল নিয়ে নেয় সিংহভাগ শ্রমিক। দিনের পর দিন ধরে বাগানের পাতা চুরি করে বাইরে পাঠানো হচ্ছিল। এদিন পুলিশ সক্রিয় হতেই তা হাতেনাতে ধরা পড়ে। বাগানের সমস্যা মেটানোর জন্য শ্রম দপ্তর, পুলিশ, প্রশাসন সহ নানা জায়গায় মালিকপক্ষ চিঠি দিয়েছে। তবুও সমস্যা মেটেনি।

- Advertisement -

মেখলিগঞ্জ থানার ওসি ভাস্কর রায় জানান, বাগান থেকে পাতা চুরির খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে একটি গাড়ি আটক করেছে। কে বা কারা পথ অবরোধের চেষ্টা করলে তা হটিয়ে দেওয়া হয়। গাড়িটিকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বাগানের মালিকপক্ষের তরফে শুভজিৎ রক্ষিত জানিয়েছেন, শ্রমিকরা জোর করে বাগানের দখল করে নিয়েছে। গত ২০১৯ সালে সর্বশেষ ২ লক্ষ ৮০ হাজার কেজি পাতা উৎপাদন হয়েছিল। তারপর থেকে যা উৎপাদন হচ্ছে, শ্রমিকরা চুরি করে বাইরে পাচার করে দিচ্ছে। এখনও অবধি কোটি টাকার উপরে ক্ষতি হয়েছে বাগানের। বাগান উদ্ধারের জন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর কাছে মালিকপক্ষের তরফে চিঠিও দেওয়া হয়েছে বলে শুভজিৎ বাবু জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে অবশ্য বাগানের শ্রমিকদের কোনও বক্তব্য মেলেনি।