প্রতারণার অভিযোগে মাংসের দোকান বন্ধ করল স্থানীয়রা

498

তুফানগঞ্জ: প্রতারণার অভিযোগে মাংসের দোকান বন্ধ করে দিলেন স্থানীয়রা। অভিযোগ, ব্যবসায়ী গোলাপ রবিদাস পাঠার মাংসের নাম করে ছাগলের মাংস বিক্রি করছিলেন। মঙ্গলবার তুফানগঞ্জ শহরের ৭ ওয়ার্ডের ইলেকট্রিক অফিস মোড়ের ঘটনা। স্থানীয়দের অভিযোগ, গোলাপ রবিদাস নামে এক মাংসের দোকানদার দীর্ঘদিন ধরে পাঠার মাংসের নাম করে ছাগলের মাংস বিক্রি করে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা করছিলেন। এরফলে ক্রেতারা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছিলেন। মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় বাসিন্দা উজ্জ্বল দত্ত, প্রণব দত্ত সহ অনেকেই পাঠার মাংসের বদলে ছাগলের মাংস বিক্রি করায় গোলাপ রবিদাসের মাংসের দোকান বন্ধ করে দেন।

উজ্জ্বল বাবু বলেন, সোমবার দুপুর একটা নাগাদ ৫০০ গ্রাম পাঠার মাংস গোলাপ বাবুর দোকান থেকে নিয়ে গিয়ে এক সরকারি আধিকারিককে দিই। তিনি আমাকে রাত সাড়ে আটটা নাগাদ ফোন করে তার বাড়িতে আসতে বলেন। কিছু সময় পরে আমি ওই আধিকারিকের বাড়িতে যাই। তিনি আমাকে রান্না করা ওই মাংস খেতে বলেন। আমি মাংস খেতে গিয়ে দেখি দাঁত দিয়ে টেনেও ওই মাংস ছিঁড়ছে না। এরপর ওই আধিকারিক আমাকে রান্না করা ওই মাংস নিয়ে যেতে বলেন ।আমি সোমবার রাতেই বিষয়টি মৌখিক ভাবে মহকুমা প্রশাসনের এক আধিকারিক ও তুফানগঞ্জ পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারম্যানকে জানাই। আমি মঙ্গলবার সকালে ওই রান্না করা মাংস নিয়ে গোলাপ বাবুর দোকানে যাই। তাকে রান্না করা মাংস খেতে বলি। গোলাপ বাবু অনেক চেষ্টা করেও দাঁত দিয়ে টেনে মাংস ছিঁড়তে পারেন নি। এরপর বিষয়টি জানাজানি হতেই স্থানীয় মানুষজন সেখানে ভিড় জমান। তারাই দোকানটি বন্ধ করে দেন। প্রণব দত্ত নামে এক ফাস্টফুড দোকানদার বলেন, আমিও গোলাপ বাবুর কাছে মাংস কিনতাম। কিন্তু তিনি যে এইভাবে আমাদের সঙ্গে প্রতারণা করবেন তা জানা ছিল না। অবিলম্বে ভেজাল খাদ্যদ্রব্য নিয়ে পুরসভার অভিযানে নামা উচিত বলে তিনি মনে করেন।

- Advertisement -

মাংস ব্যবসায়ী গোলাপ রবিদাস অভিযোগ স্বীকার করে নিয়ে বলেন, কয়েক বছর ধরে আমি মাংসের দোকান চালাচ্ছি। গত এক মাস ধরে আমি ছাগলের মাংস বিক্রি করছি। তুফানগঞ্জ পুরসভার প্রশাসক মন্ডলীর চেয়ারম্যান অনন্ত কুমার বর্মা বলেন, ভেজাল মাংস ও খাদ্যদ্রব্য সম্পর্কে সচেতন হওয়ার খুব ভালো লাগছে। আমরা পুরসভার তরফে ইতিমধ্যে বহুবার অভিযানে নেমেছিলাম। ভেজাল খাদ্যদ্রব্যর বিরুদ্ধে আগামিদিনে ফের অভিযানে নামা হবে।