আশাকর্মীই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান, স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে সমস্যায় এলাকাবাসী

246

মোস্তাক মোরশেদ হোসেন, রাঙ্গালিবাজনা: আশাকর্মী ভোটে জিতে গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পদ পেয়েছেন। ফলে আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের রাঙ্গালিবাজনা গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ রাঙ্গালিবাজনার দৌলতপুরের বাসিন্দারা স্বাস্থ্য পরিষেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

বিষয়টি নিয়ে সেপ্টেম্বর মাসে এলাকার বাসিন্দারা স্মারকলিপি দেন মাদারিহাটের ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক দেবজ্যোতি চক্রবর্তীকে। স্মারকলিপিতে তাঁরা ওই এলাকায় নয়া আশাকর্মী নিয়োগের দাবি তুলেছেন। স্থানীয়দের বক্তব্য, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে ওই এলাকায় নারী ও শিশুদের স্বাস্থ্য পরিষেবা পদে পদে হোঁচট খাচ্ছে।

- Advertisement -

দক্ষিণ শিশুবাড়ি উপস্বাস্থ্যকেন্দ্র সূত্রে জানা গিয়েছে, উত্তর শিশুবাড়ি, দক্ষিণ শিশুবাড়ি, দক্ষিণ রাঙ্গালিবাজনা, মোক্তারপুর, দৌলতপুর, নবীপুর সহ বিরাট এলাকার কমবেশি সাত হাজার মানুষের পরিষেবা দেওয়া হয় ওই কেন্দ্র থেকে। স্বাস্থ্য পরিষেবার জন্য বিভিন্ন মৌজায় রয়েছেন আশাকর্মীরা। দক্ষিণ রাঙ্গালিবাজনার আশাকর্মী রীণা শৈব কার্জি রাঙ্গালিবাজনা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পদে অভিষিক্ত হয়েছেন। তাই ওই এলাকায় আশাকর্মীর পরিষেবা পাচ্ছেন না স্থানীয়রা। এলাকার বাসিন্দা লুৎফর রহমান বলেন, ‘প্রায় আড়াই বছর ধরে সমস্যায় রয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা। সবচেয়ে সমস্যায় পড়েছেন অন্ত:সত্ত্বারা।’ অপর বাসিন্দা বীরেন রায় বলেন, ‘আমার অন্ত:সত্ত্বা পুত্রবধূর জন্য অন্য এলাকার আশাকর্মীর সাহায্য নিতে হয়েছে।’

এই বিষয়ে রাঙ্গালিবাজনা গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রীণা শৈব কার্জি বলেন, ‘আমি আশাকর্মী হিসেবে প্রাপ্য বেতন নিচ্ছি না। তবে এলাকায় স্বাস্থ্য পরিষেবা দেওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছি। মাঝে মাঝে অন্য আশাকর্মীদের সাহায্যও নিচ্ছি।’ মাদারিহাটের ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক দ্যেবজ্যোতি চক্রবর্তী বলেন, ‘বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে শুধু দক্ষিণ রাঙ্গালিবাজনা নয়, আরও কয়েকটি জায়গায় আশাকর্মী নেই। কিন্তু ওই এলাকাগুলিতেও স্বাস্থ্য পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।’