র‍্যাশনে নিম্নমানের চাল দেওয়ার অভিযোগে বিক্ষোভ

510

সামসী: পাথর মেশানো ও পোকাধরা চাল সরবরাহের অভিযোগে বিক্ষোভ দেখালেন শতাধিক গ্রাহক। শনিবার চাঁচল-২ ব্লকের ধানগাড়া-বিষণপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রণঘাট গ্রামে র‍্যাশন ডিলারের বাড়ির সামনে দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ দেখান তাঁরা।

গ্রাহকদের অভিযোগ, গম সরবরাহ থাকলেও গ্রাহকদের তা বিলি করেন না র‍্যাশন ডিলার। এছাড়াও ওজনে কম দেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে ওই র‍্যাশন ডিলারের বিরুদ্ধে। স্থানীয় ও খাদ্য সরবরাহ দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, রণঘাট গ্রামের ওই র‍্যাশন ডিলারের নাম আব্দুল খালেক। শনিবার তিনি র‍্যাশনের সামগ্রী দেওয়ার জন্য দোকান খোলেন। এদিন ঠিক সকাল সকাল আরও এক লরি র‍্যাশনের চাল আসে। এদিন তাঁর র‍্যাশন দোকানে আসা চাল বোঝাই লরি থেকে কয়েক বস্তা চাল নামামোর পর তা খোলা হতেই শুরু হয় হইচই। গ্রাহকদের পাশাপাশি হইচই শুনে ছুটে আসেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ। বিক্ষোভের জেরে এদিন র‍্যাশন সরবরাহ বন্ধ ছিল।

- Advertisement -

গ্রাহক তথা স্থানীয় বাসিন্দারা র‍্যাশন ডিলারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন। চাল খাওয়ার অযোগ্য বলে ডিলারের বাড়ির সামনেই শুরু হয় লরি আটকে বিক্ষোভ। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, চাল পোকাধরা, পাথরের কুঁচি মেশানো। ওই চাল একেবারে খাওয়ার অযোগ্য। এনিয়ে গ্রাহকরা এদিন ঘণ্টা ছয়েক চাল বোঝাই লরি ঘিরে বিক্ষোভ দেখান। এছাড়া ওই র‍্যাশন ডিলার উপভোক্তাদের নিয়মিত ওজনে কম সামগ্রী দেন বলেও অভিযোগ।
রণঘাটে র‍্যাশন ডিলারের বাড়িতে বিক্ষোভের খবর যায় চাঁচল-২ বিডিও ও ব্লক খাদ্য সরবরাহ আধিকারিক কাছে। খাদ্য সরবরাহ দপ্তর থেকে এক প্রতিনিধি গিয়ে ভালো চাল সরবরাহের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভ তুলে নেন গ্রাহকরা।

চাঁচল-২ ব্লক খাদ্য সরবরাহ আধিকারিক গোবিন্দ হীরা বলেন, ‘বিষয়টি শুনেছি। আমরা সবসময় চাই উপভোক্তারা যাতে ভালো সামগ্রী পান। খারাপ চাল দেওয়ার কথা নয়। কিন্তু লরিতে নিম্নমানের চাল কেন পাঠানো হয়েছিল, তা তদন্ত করে দেখা হবে।’ তবে তিনি বলেন, ‘ওই লরির চাল পালটে নতুন চাল পাঠানো হবে।’

যদিও পরিমাণে কম র‍্যাশন সামগ্রী দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন র‍্যাশন ডিলার আব্দুল খালেক। তিনি বলেন, ‘ওই লরি ভর্তি চাল তিনি নিজে কিনে আনেননি। খাদ্য সরবরাহ দপ্তর এই চাল তাঁকে সরবরাহ করেছিল। এতে আমার ত্রুটি কোথায়? চালের মান খারাপ হওয়ায় তা ফেরত পাঠানোর কথা বলি। নতুন চাল আসবে তখন আবার তা গ্রাহকদের মধ্যে বিলি করা হবে।’

চাঁচল-২-এর বিডিও অমিত কুমার সাউ বলেন, ‘গোটা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। র‍্যাশনে কোনও বেনিয়ম হলে আইনমাফিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’